বগুড়া জেলার দর্শনীয় স্থান, ইতিহাস ও তথ্য সমূহ

বগুড়া জেলা বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলের রাজশাহী বিভাগের একটি প্রশাসনিক জেলা। আয়তনের দিক থেকে এটি বাংলাদেশের ষষ্ঠ বৃহত্তম জেলা এবং জনসংখ্যার দিক থেকে পঞ্চম বৃহত্তম জেলা। জেলার উত্তরে জয়পুরহাট ও গাইবান্ধা জেলা, দক্ষিণে চলন বিল, নাটোর ও সিরাজগঞ্জ জেলা, পূর্বে যমুনা নদী ও জামালপুর জেলা এবং পশ্চিমে নওগাঁ ও নাটোর জেলা। বগুড়া জেলা সদর।

বগুড়া উত্তর বাংলাদেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক কেন্দ্র। জেলাটিতে টেক্সটাইল, খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ এবং চামড়া উৎপাদন সহ বেশ কয়েকটি শিল্পের আবাসস্থল। বগুড়াও একটি প্রধান কৃষি কেন্দ্র। ধান, গম, পাট ও আখ উৎপাদনের জন্য জেলাটি পরিচিত।

Bogra-District

বগুড়া জেলার ইতিহাস

বগুড়া জেলা ১৮২১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। জেলার একটি সমৃদ্ধ ইতিহাস ও সংস্কৃতি রয়েছে। এটি একসময় প্রাচীন রাজ্য পুন্ড্রবর্ধনের রাজধানী ছিল। এর নাম কয়েক শতাব্দীতে বহুবার পরিবর্তিত হয়েছে। এই অঞ্চলের প্রাচীনতম নাম ছিল পুন্ড্রবর্ধন, যেটি একটি রাজ্য ছিল যা প্রাচীনকালে বিদ্যমান ছিল। মহাভারত, রামায়ণ এবং পুরাণ সহ বিভিন্ন প্রাচীন গ্রন্থে পুন্ড্রবর্ধন নামটি উল্লেখ করা হয়েছে।

১৩শ শতাব্দীতে, এলাকাটি মুসলিম শাসনের অধীনে আসে। মুসলিম শাসক নাসিরুদ্দিন বুগরা খান ১২৭৯ থেকে ১২৮২ সাল পর্যন্ত বাংলার গভর্নর ছিলেন। তার মৃত্যুর পর, তার নামে এলাকাটির নামকরণ করা হয় এবং তখন থেকেই এটি বগুড়া নামে পরিচিত।

বগুড়া জেলার থানা/উপজেলা সমূহ

বগুড়া জেলার সমস্ত থানা/উপজেলা উল্লেখ করা হলো:
  1. বগুড়া সদর উপজেলা,
  2. গাবতলী উপজেলা,
  3. সারিয়াকান্দা উপজেলা,
  4. আদমদীঘি উপজেলা,
  5. সোনাতলা উপজেলা,
  6. শেরপুর উপজেলা,
  7. কাহালু উপজেলা,
  8. শিবগঞ্জ উপজেলা,
  9. দুপচাঁচিয়া উপজেলা,
  10. নন্দীগ্রাম উপজেলা,
  11. শাজাহানপুর উপজেলা,
  12. ধুনট উপজেলা।

বগুড়া জেলার দর্শনীয় স্থান সমূহ

এখানে বগুড়া জেলার সবচেয়ে দর্শনীয় স্থানগুলির মধ্যে কয়েকটি রয়েছে:

মহাস্থানগড়

এটি একটি সুবিশাল প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান যা খ্রিস্টপূর্ব ৩য় শতাব্দীর। এটি একসময় পুন্ড্রবর্ধন, গৌড় এবং বরেন্দ্র সহ বেশ কয়েকটি প্রাচীন রাজ্যের রাজধানী ছিল। মন্দির, মঠ এবং দুর্গ সহ এই সাইটটি বেশ কয়েকটি ধ্বংসাবশেষের আবাসস্থল।

বেহুলা লক্ষীন্দর বাসর ঘোর

স্থানটি হিন্দু মহাকাব্য বেহুলা স্থাপিত হয়েছিল। এই সাইটটিতে বেশ কয়েকটি মন্দির এবং উপাসনালয় রয়েছে সেইসাথে একটি বড় পুকুর রয়েছে।

খেরুয়া মসজিদ

এই মসজিদটি বাংলাদেশের প্রাচীনতম এবং সবচেয়ে সংরক্ষিত মসজিদগুলির মধ্যে একটি। এটি ১৬ শতকে মুঘল সম্রাট আকবর নির্মিত হয়েছিল।

মোহাম্মদ আলী প্রাসাদ জাদুঘর ও পার্ক

এই প্রাসাদটি ১৯ শতকে বগুড়ার নবাব দ্বারা নির্মিত হয়েছিল। এটি এখন একটি জাদুঘর যেখানে নবাবের আমলের নিদর্শনগুলির একটি সংগ্রহ রয়েছে। প্রাসাদটি একটি সুন্দর পার্ক দ্বারা ঘেরা।

সৌদিয়া সিটি পার্ক

এই পার্কটি পিকনিক, হাঁটা এবং অন্যান্য বহিরঙ্গন কার্যকলাপের জন্য একটি জনপ্রিয় স্থান। এটি একটি হ্রদ, একটি খেলার মাঠ এবং একটি চিড়িয়াখানা সহ অনেকগুলি আকর্ষণের আবাসস্থল৷

পরশুরাম প্রাসাদ

এই প্রাসাদটি ১৯ শতকে পরশুরামপুরের মহারাজা তৈরি করেছিলেন। এটি এখন একটি জাদুঘর যেখানে মহারাজার সময়কার নিদর্শনগুলির একটি সংগ্রহ রয়েছে৷

আদমের মাজার এবং আদমদীঘির বিখ্যাত দীঘি

এই মাজারটি ১৬ শতকে বসবাসকারী একজন সুফি সাধক বাবা আদমকে উত্সর্গীকৃত। মাজারটি একটি বড় পুকুরের পাড়ে অবস্থিত যা আদমদীঘির দীঘি নামে পরিচিত।

বসু বিহার

এই বৌদ্ধ বিহারটি অষ্টম শতাব্দীতে নির্মিত হয়েছিল। এটি বাংলাদেশের প্রাচীনতম এবং সবচেয়ে ভালোভাবে সংরক্ষিত বৌদ্ধ বিহারগুলির মধ্যে একটি।

সান্তাহার সাইলো

এই সাইলো বাংলাদেশের অন্যতম বৃহৎ সাইলো। এটি ১৯৬০-এর দশকে নির্মিত হয়েছিল এবং শস্য সংরক্ষণের জন্য ব্যবহৃত হয়। সাইলো তার অনন্য স্থাপত্যের কারণে একটি জনপ্রিয় পর্যটক আকর্ষণ।

বগুড়া জেলা পার্ক

বগুড়া জেলা পার্ক বাংলাদেশের বগুড়া শহরে অবস্থিত একটি পাবলিক পার্ক। এটি শহরের সবচেয়ে জনপ্রিয় পর্যটন গন্তব্যগুলির মধ্যে একটি এবং এটি তার সবুজ-সুন্দর ফোয়ারা এবং বিভিন্ন বিনোদনমূলক সুবিধার জন্য পরিচিত।

পার্কটি ১৯৬০ সালে তৎকালীন পাকিস্তান সরকার কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত হয়। এটি প্রথমে বগুড়া মিউনিসিপ্যালিটি পার্ক নামে পরিচিত ছিল, কিন্তু বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভের পর 1971 সালে এর নাম পরিবর্তন করে বগুড়া জেলা পার্ক রাখা হয়।

পার্কটি বিভিন্ন গাছ, গাছপালা এবং ফুলের আবাসস্থল। এটিতে অনেকগুলি ফোয়ারা, একটি বাচ্চাদের খেলার মাঠ, একটি জগিং ট্র্যাক এবং একটি হ্রদ রয়েছে।

যে কারনে বগুড়া জেলা বিখ্যাত

বগুড়া জেলা বিভিন্ন কারণে বিখ্যাত, যার মধ্যে রয়েছে:
  • ইতিহাস: বগুড়া বাংলাদেশের প্রাচীনতম শহরগুলির মধ্যে একটি, যার ইতিহাস খ্রিস্টপূর্ব তৃতীয় শতাব্দীতে মহান সম্রাট অশোকের রাজত্বকালের। মৌর্য, গুপ্ত, পাল, সেন এবং মুঘল সহ বহু শতাব্দী ধরে এই জেলাটি বিভিন্ন সাম্রাজ্য ও রাজবংশ দ্বারা শাসিত হয়েছে।
  • প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান: বগুড়া মহাস্থানগড় সহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনের আবাসস্থল, যেটি একসময় প্রাচীন বাংলার অন্যতম প্রধান রাজ্য পুন্ড্রবর্ধনের রাজধানী ছিল। মহাস্থানগড় ইউনেস্কোর একটি বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান এবং এটি বাংলাদেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান।
  • প্রাকৃতিক সৌন্দর্য: বগুড়া একটি উর্বর সমভূমিতে অবস্থিত এবং পাহাড় ও বনে ঘেরা। মহানন্দা বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য, দুধকুমার নদী এবং মহাস্থানগড় পাহাড় সহ এই জেলাটি অনেক সুন্দর প্রাকৃতিক আকর্ষণের আবাসস্থল।
  • সংস্কৃতি: বগুড়া একটি সমৃদ্ধ ও বৈচিত্র্যময় সংস্কৃতির আবাসস্থল। এই জেলাটি বাঙালি, আদিবাসী এবং মুসলমান সহ বিভিন্ন জাতিগত গোষ্ঠীর লোকদের বাসস্থান। বগুড়া জাদুঘর এবং বগুড়া জেলা পরিষদ মিলনায়তন সহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানের আবাসস্থল।
  • অর্থনীতি: বগুড়া বাংলাদেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক কেন্দ্র। জেলায় কৃষি, উৎপাদন, এবং পর্যটন সহ অনেক শিল্পের আবাসস্থল। বগুড়া একটি প্রধান পরিবহন কেন্দ্র এবং বগুড়া বিমানবন্দর এবং বগুড়া রেলওয়ে স্টেশনের আবাসস্থল।
বগুড়া একটি সুন্দর এবং ঐতিহাসিক জেলা যা দর্শনার্থীদের জন্য প্রচুর। আপনি ইতিহাস, সংস্কৃতি বা প্রকৃতির প্রতি আগ্রহী হোন না কেন, আপনি বগুড়ায় উপভোগ করার মতো কিছু খুঁজে পাবেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Oops!
সম্ভবত আপনার ইন্টারনেট সংযোগে ত্রুটি হয়েছে!!