আমাদের ফলো করুন গুগল নিউজ

সিলেট বিভাগের ইতিহাস, দর্শনীয় স্থান ও তথ্য সমূহ

সিলেট বিভাগ বাংলাদেশের উত্তর-পূর্ব বিভাগ। এটির উত্তর, পূর্ব ও দক্ষিণে যথাক্রমে ভারতের মেঘালয়, আসাম এবং ত্রিপুরা রাজ্য এবং দক্ষিণ-পশ্চিমে চট্টগ্রাম এবং পশ্চিমে ঢাকা ও ময়মনসিংহের বাংলাদেশী বিভাগ দ্বারা সীমাবদ্ধ। ১৯৪৭ সালের আগে এটি করিমগঞ্জ (বর্তমানে ভারতের বরাক উপত্যকায়) মহকুমা অন্তর্ভুক্ত করে। যাইহোক, করিমগঞ্জ (বদরপুর, পাথরকান্দি ও রাতাবাড়ী থানা সহ) র‌্যাডক্লিফ বাউন্ডারি কমিশনের দ্বারা সিলেট থেকে অবর্ণনীয়ভাবে বিচ্ছিন্ন করা হয়েছিল।

১৯৯৫ সালে সিলেট চট্টগ্রাম বিভাগ থেকে বিভক্ত হয়ে দেশের ৬তম বিভাগ হিসাবে ঘোষিত হয়। সিলেট বিভাগ বিভাগীয় কমিশনার দ্বারা তত্ত্বাবধান করা হয়, বর্তমান বিভাগীয় কমিশনার মোঃ মশিউর রহমান। সিলেট বিভাগকে চারটি জেলা (হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার, সুনামগঞ্জ ও সিলেট) এবং আরও ৩৫টি উপজেলায় (উপজেলা) বিভক্ত করা হয়েছে। এই উপজেলাগুলোকে আবার ৩২৩টি ইউনিয়ন পরিষদে বিভক্ত করা হয়েছে। গ্রাম-পর্যায়ে যাওয়ার আগে প্রতিটি ইউনিয়নকে মোটামুটিভাবে ৯টি ওয়ার্ডে ভাগ করা হয়েছে। বিভাগে প্রায় ১০,১৮৫ টি গ্রাম রয়েছে।

সিলেট বিভাগ বাংলাদেশের একটি প্রধান অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র। এটি সিলেট চা বাগানের আবাসস্থল, বিশ্বের অন্যতম বৃহত্তম চা বাগান। বিভাগটি সিলেট আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের আবাসস্থল, বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম বিমানবন্দর।

Sylhet-pision

সিলেট বিভাগের ইতিহাস

সিলেট বিভাগের ইতিহাস দীর্ঘ ও সমৃদ্ধ এই অঞ্চলে হাজার হাজার বছর ধরে বসবাস করা হয়েছে এবং বিভিন্ন সাম্রাজ্য ও রাজ্যের দ্বারা শাসন করা হয়েছে। সিলেটের প্রাচীনতম পরিচিত অধিবাসীরা ছিল ত্রিপুরী মানুষ, যারা ইন্দো-আর্য উপজাতির একটি দল ছিল। ত্রিপুরীরা শেষ পর্যন্ত কামরূপ রাজ্য দ্বারা জয়লাভ করেছিল, যেটি ছিল একটি শক্তিশালী বৌদ্ধ রাজ্য যেটি ৭ম থেকে ১২ শতক পর্যন্ত উত্তর-পূর্ব ভারত এবং বাংলাদেশের বেশিরভাগ অঞ্চল শাসন করেছিল।

১৩ শতকে, কামরূপ রাজ্য মুসলিম দিল্লি সালতানাত দ্বারা জয় করা হয়েছিল। সালতানাত কয়েক শতাব্দী ধরে সিলেটের উপর শাসন করেছিল এবং এই সময়ে, ইসলাম সমগ্র অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ে। ষোড়শ শতাব্দীতে সিলেট মুঘল সাম্রাজ্যের দ্বারা জয় করা হয়েছিল। মুঘলরা ২০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে সিলেটে শাসন করেছিল এবং এই সময়ে, এই অঞ্চলটি অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক বিকাশের সময়কাল অনুভব করেছিল।

১৮ শতকে মুঘল সাম্রাজ্যের পতন শুরু হয় এবং সিলেট অবশেষে ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি দ্বারা জয় করা হয়। ব্রিটিশরা ১০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে সিলেটে শাসন করেছিল এবং এই সময়ে, অঞ্চলটি ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক ব্যবস্থায় একীভূত হয়েছিল।

১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ ভারতীয় সাম্রাজ্য দুটি স্বাধীন দেশ ভারত ও পাকিস্তানে বিভক্ত হয়েছিল। সিলেট মূলত ভারতের অন্তর্ভুক্ত ছিল, কিন্তু সিলেটের জনগণ গণভোটে পাকিস্তানে যোগদানের পক্ষে ভোট দেয়। সিলেট তখন থেকেই পাকিস্তান এবং তারপর বাংলাদেশের অংশ। বর্তমানে সিলেট একটি সমৃদ্ধ ইতিহাস ও সংস্কৃতির সমৃদ্ধ অঞ্চল।

সিলেট বিভাগের জেলা সমূহ

এখানে সিলেট বিভাগের সকল জেলার তথ্য রয়েছে:

  1. সিলেট জেলা,
  2. হবিগঞ্জ জেলা,
  3. মৌলভীবাজার জেলা,
  4. সুনামগঞ্জ জেলা।

সিলেট জেলা

সিলেট বিভাগের বৃহত্তম জেলা। এটি বাংলাদেশের উত্তর-পূর্ব অংশে অবস্থিত এবং উত্তর ও পূর্বে ভারতের মেঘালয় ও আসাম রাজ্য, পশ্চিমে হবিগঞ্জ জেলা এবং দক্ষিণে মৌলভীবাজার জেলা অবস্থিত। জেলাটির জনসংখ্যা ৩.৯ মিলিয়নেরও বেশি এবং এটি চা বাগান, পাহাড় এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্য পরিচিত।

হবিগঞ্জ জেলা

সিলেট বিভাগের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে অবস্থিত। এর উত্তরে সিলেট জেলা, পূর্বে মৌলভীবাজার জেলা, পশ্চিমে কিশোরগঞ্জ জেলা এবং দক্ষিণে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা অবস্থিত। জেলাটির জনসংখ্যা ১.৯ মিলিয়নেরও বেশি এবং এটি ধান চাষ, আমের বাগান এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্য পরিচিত।

মৌলভীবাজার জেলা

সিলেট বিভাগের দক্ষিণ-পূর্বাংশে অবস্থিত। এর উত্তরে সিলেট জেলা, পশ্চিমে হবিগঞ্জ জেলা, পূর্বে ভারতের আসাম রাজ্য এবং দক্ষিণে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্য। জেলাটির জনসংখ্যা ১.৬ মিলিয়নেরও বেশি এবং এটি চা বাগান, পাহাড় এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্য পরিচিত।

সুনামগঞ্জ জেলা

সিলেট বিভাগের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে অবস্থিত। এর পূর্বে সিলেট জেলা, দক্ষিণে হবিগঞ্জ জেলা, পশ্চিমে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্য এবং উত্তরে ভারতের মেঘালয় রাজ্য রয়েছে। জেলাটির জনসংখ্যা ১.৪ মিলিয়নেরও বেশি এবং এর হাওর (জলাভূমি) চা বাগান এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্য পরিচিত।

সিলেট বিভাগ একটি সমৃদ্ধ ইতিহাস ও সংস্কৃতি সমৃদ্ধ একটি সুন্দর ও বৈচিত্র্যময় অঞ্চল। এটি একটি জনপ্রিয় পর্যটন গন্তব্য এবং এখানে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক ও ধর্মীয় স্থান রয়েছে।

সিলেট বিভাগের দর্শনীয় স্থান সমূহ

এখানে সিলেট বিভাগের জনপ্রিয় কিছু দর্শনীয় স্থান সম্পর্কে তুলে ধরা হলো:

  • জাফলং: জাফলং বাংলাদেশ ও ভারতের সীমান্তে অবস্থিত একটি ছোট শহর। এটি তার ভাসমান বাজারের জন্য বিখ্যাত, যেখানে লোকেরা নৌকায় পণ্য ক্রয় এবং বিক্রি করতে পারে।
  • রাতারগুল সোয়াম্প ফরেস্ট: রাতারগুল সোয়াম্প ফরেস্ট সিলেট জেলায় অবস্থিত একটি অনন্য ইকোসিস্টেম। এটি বিরল রয়েল বেঙ্গল টাইগার সহ বিভিন্ন ধরণের গাছপালা এবং প্রাণীর আবাসস্থল।
  • টাঙ্গুয়ার হাওর: টাঙ্গুয়ার হাওর বাংলাদেশের বৃহত্তম হাওর। এটি মাছ ধরা, বোটিং এবং পাখি দেখার জন্য একটি জনপ্রিয় গন্তব্য।
  • লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান মৌলভীবাজার জেলায় অবস্থিত একটি রেইন ফরেস্ট। এটি মেঘাচ্ছন্ন চিতাবাঘ এবং ছাপানো লাঙ্গুর সহ বিভিন্ন গাছপালা এবং প্রাণীর আবাসস্থল।
  • বিছনাকান্দি: বিছনাকান্দি সিলেট জেলায় অবস্থিত একটি পাহাড়ি স্থান। এটি হাইকিং, ক্যাম্পিং এবং পিকনিক করার জন্য একটি জনপ্রিয় গন্তব্য।
  • মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত: মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত মৌলভীবাজার জেলায় অবস্থিত একটি জলপ্রপাত। এটি সাঁতার, পিকনিকিং এবং ফটোগ্রাফির জন্য একটি জনপ্রিয় গন্তব্য।
  • খাদিমনগর জাতীয় উদ্যান: খাদিমনগর জাতীয় উদ্যান হল মৌলভীবাজার জেলায় অবস্থিত একটি জাতীয় উদ্যান। এটি এশিয়ান হাতি এবং গৌড় সহ বিভিন্ন উদ্ভিদ ও প্রাণীর আবাসস্থল।
  • হাকালুকি হাওর: হাকালুকি হাওর হল সুনামগঞ্জ জেলায় অবস্থিত একটি হাওর। এটি মাছ ধরা, বোটিং এবং পাখি দেখার জন্য একটি জনপ্রিয় গন্তব্য।
  • মাধবপুর লেক: মাধবপুর লেক মৌলভীবাজার জেলায় অবস্থিত একটি হ্রদ। মাছ ধরা, বোটিং এবং পিকনিক করার জন্য এটি একটি জনপ্রিয় গন্তব্য।
  • পাংথুমাই জলপ্রপাত: পাংথুমাই জলপ্রপাত সিলেট জেলায় অবস্থিত একটি জলপ্রপাত। এটি সাঁতার কাটা, পিকনিকিং এবং ফটোগ্রাফির জন্য একটি জনপ্রিয় গন্তব্য।
  • শাহজালাল দরগাহ: শাহজালাল দরগাহ সিলেট শহরে অবস্থিত একটি মাজার। এটি সারা বিশ্বের মুসলমানদের জন্য একটি জনপ্রিয় গন্তব্য।
  • হাম হাম জলপ্রপাত: হাম হাম জলপ্রপাত মৌলভীবাজার জেলায় অবস্থিত একটি জলপ্রপাত। এটি সাঁতার কাটা, পিকনিকিং এবং ফটোগ্রাফির জন্য একটি জনপ্রিয় গন্তব্য।

সিলেট বিভাগের অনেকগুলো দর্শনীয় স্থানের মধ্যে এগুলো মাত্র কয়েকটি। অত্যাশ্চর্য প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের সাথে সিলেট এমন একটি গন্তব্য যেখানে প্রত্যেকের কাছে কিছু না কিছু আছে।

সিলেট বিভাগের মধ্যে পার্ক সমূহ

সিলেট বিভাগে অনেকগুলো পার্ক ও উদ্যান রয়েছে, যার মধ্যে অন্যতম কয়েকটি পার্ক নিয়ে আলোচনা করা হলো:

খাদিমনগর জাতীয় উদ্যান

এই উদ্যানটি সিলেট শহর থেকে ১৩ কিলোমিটার পূর্বে অবস্থিত এবং ৬৭৯ হেক্টর এলাকা জুড়ে রয়েছে। এটি হাতি, বাঘ এবং হরিণ সহ বিভিন্ন ধরণের উদ্ভিদ এবং প্রাণীর আবাসস্থল।

ওসমানী শিশু উদ্যান

সিলেট শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত এই পার্কটি পরিবারের জন্য একটি জনপ্রিয় গন্তব্য। এটিতে একটি চিড়িয়াখানা, একটি শিশু পার্ক এবং অন্যান্য অনেকগুলি আকর্ষণ রয়েছে৷

এমএজি ওসমানী বিনোদন পার্ক

এই পার্কটি সিলেট শহরের উপকণ্ঠে অবস্থিত এবং সব বয়সের মানুষের জন্য একটি জনপ্রিয় গন্তব্যস্থল। এটি একটি রোলার কোস্টার, একটি ফেরিস হুইল এবং একটি ওয়াটার পার্ক সহ বিভিন্ন রাইড এবং আকর্ষণের বৈশিষ্ট্য রয়েছে৷

সিলেট বিভাগ একটি সুন্দর এবং বৈচিত্র্যময় অঞ্চল যেখানে দর্শনার্থীদের জন্য প্রচুর সুবিধা রয়েছে। বাংলাদেশের এই অংশে যাওয়ার অনেক কারণের মধ্যে এর পার্ক এবং উদ্যানগুলি একটি মাত্র।

যে কারণে সিলেট বিভাগ বিখ্যাত

সিলেট বিভাগ এর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, এর সমৃদ্ধ ইতিহাস ও সংস্কৃতি এবং এর অর্থনৈতিক গুরুত্ব সহ অনেক কারণে বিখ্যাত।

  • প্রাকৃতিক সৌন্দর্য: সিলেট পাহাড়-পর্বত ঘেরা একটি সবুজ, সবুজ উপত্যকায় অবস্থিত। এই বিভাগের মধ্য দিয়ে সুরমা নদী প্রবাহিত হয়েছে এবং এখানে অনেক জলপ্রপাত, হ্রদ এবং বন রয়েছে। এই অঞ্চলটি হাতি, বাঘ এবং চিতাবাঘ সহ বিভিন্ন বন্যপ্রাণীর আবাসস্থল।
  • সমৃদ্ধ ইতিহাস ও সংস্কৃতি: সিলেটের একটি দীর্ঘ ও সমৃদ্ধ ইতিহাস রয়েছে। এটি একসময় কামরূপের প্রাচীন রাজ্যের রাজধানী ছিল এবং এটি ব্যবসা-বাণিজ্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র ছিল। এই অঞ্চলে অনেকগুলি গুরুত্বপূর্ণ ধর্মীয় স্থান রয়েছে, যার মধ্যে হজরত শাহ জালালের মাজার রয়েছে, একজন সুফি সাধক যিনি সিলেট প্রতিষ্ঠা করেছিলেন বলে কথিত আছে৷
  • অর্থনৈতিক গুরুত্ব: সিলেট বাংলাদেশের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক কেন্দ্র। এই অঞ্চলে চা উৎপাদন, কৃষি এবং পর্যটন সহ বেশ কিছু শিল্পের আবাসস্থল। সিলেটও একটি প্রধান পরিবহন কেন্দ্র, এবং এটি বাংলাদেশ ও ভারতের অন্যান্য অংশের সাথে সড়ক, রেল এবং আকাশপথে সংযুক্ত।

এসব কারণ ছাড়াও সিলেটের জনগণের জন্যও বিখ্যাত। সিলেটের মানুষ তাদের উষ্ণতা, আতিথেয়তা এবং রসবোধের জন্য পরিচিত। তারা তাদের সঙ্গীত এবং নৃত্য প্রেমের জন্য পরিচিত। সিলেট একটি প্রাণবন্ত এবং বৈচিত্র্যময় অঞ্চল যা দর্শনার্থীদের অফার করার জন্য অনেক কিছু। আপনি যদি বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, ইতিহাস, এবং সংস্কৃতির অভিজ্ঞতার জন্য একটি জায়গা খুঁজছেন, সিলেট হল উপযুক্ত গন্তব্য।

এখানে কিছু নির্দিষ্ট বিষয় রয়েছে যা সিলেট বিভাগকে বিখ্যাত করে তুলেছে:

  • চা: সিলেট "বাংলাদেশের চায়ের রাজধানী" হিসেবে পরিচিত। এই অঞ্চলটি ১৫০ টিরও বেশি চা বাগানের আবাসস্থল, যা বিশ্বের সেরা চা উত্পাদন করে।
  • ইতিহাস ও সংস্কৃতি: সিলেটের একটি দীর্ঘ ও সমৃদ্ধ ইতিহাস রয়েছে। অঞ্চলটি এক সময় কামরূপের প্রাচীন রাজ্যের রাজধানী ছিল এবং এটি ব্যবসা-বাণিজ্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র ছিল। এই অঞ্চলে অনেকগুলি গুরুত্বপূর্ণ ধর্মীয় স্থান রয়েছে, যার মধ্যে হজরত শাহ জালালের মাজার রয়েছে, একজন সুফি সাধক যিনি সিলেট প্রতিষ্ঠা করেছিলেন বলে জানা যায়।
  • মানুষ: সিলেটের মানুষ তাদের উষ্ণতা, আতিথেয়তা এবং হাস্যরসের জন্য পরিচিত। তারা সঙ্গীত এবং নৃত্য প্রেমের জন্যও পরিচিত।

সিলেট বিভাগ একটি সুন্দর ঐতিহাসিক এবং সাংস্কৃতিকভাবে সমৃদ্ধ অঞ্চল যেখানে দর্শনার্থীদের জন্য অনেক কিছু। আপনি যদি বাংলাদেশের সেরা অভিজ্ঞতার জন্য একটি জায়গা খুঁজছেন সিলেট হল উপযুক্ত গন্তব্য।

আপনি এই পোস্টগুলি দেখতে পারেন

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ওহ!
মনে হচ্ছে আপনার ইন্টারনেট সংযোগে কিছু সমস্যা আছে। অনুগ্রহ করে ইন্টারনেটের সাথে সংযোগ করুন এবং আবার ব্রাউজিং শুরু করুন৷
AdBlock সনাক্ত করা হয়েছে!
আমরা সনাক্ত করেছি যে আপনি আপনার ব্রাউজারে অ্যাডব্লকিং প্লাগইন ব্যবহার করছেন৷
এই ওয়েবসাইট পরিচালনার জন্য আমরা বিজ্ঞাপন থেকে আয় করি তাই অ্যাড আনব্লক করার জন্য অনুরোধ করছি।