বরিশাল জেলার তথ্য, ইতিহাস ও দর্শনীয় স্থান সমূহ

বরিশাল জেলা দক্ষিণ-মধ্য বাংলাদেশের একটি জেলা, পূর্বে বাকেরগঞ্জ জেলা নামে পরিচিত, ১৭৯৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এর সদর দপ্তর বরিশাল শহরে, যা বরিশাল বিভাগের সদর দপ্তরও।

বরিশাল একটি প্রধান নদী বন্দর এবং এটি তার উর্বর জমি এবং সবুজ গ্রামাঞ্চলের জন্য পরিচিত। এই জেলায় বরিশাল ফোর্ট, বরিশাল মিউজিয়াম এবং বরিশাল ক্যাথিড্রাল সহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক স্থান রয়েছে।

বরিশালের অর্থনীতি কৃষি, মাছ ধরা এবং উৎপাদনের উপর নির্ভরশীল। জেলাটি ধান, পাট ও মাছের প্রধান উৎপাদক। পোশাক শিল্পে ম্যানুফ্যাকচারিং খাতের আধিপত্য রয়েছে।

বরিশাল একটি জনপ্রিয় পর্যটন গন্তব্য এবং এর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, ঐতিহাসিক স্থান এবং সাংস্কৃতিক আকর্ষণের জন্য পরিচিত। জেলাটি সুন্দরবন জাতীয় উদ্যান, বরিশাল সমুদ্র সৈকত এবং বরিশাল শহর সহ বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্রের আবাসস্থল।

Barisal-District

বরিশাল জেলার ইতিহাস

বরিশাল জেলা পূর্বে বাকেরগঞ্জ জেলা হিসাবে পরিচিত ছিল ১৭৯৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। ১৯৯৩ সালে এর নাম পরিবর্তন করে বরিশাল জেলা করা হয়। "বরিশাল" নামটি এসেছে বাংলা শব্দ "বারি" থেকে, যার অর্থ "ঘর" এবং "সাল", যার অর্থ "লবণ"। শহরটি একসময় লবণ উৎপাদন ও ব্যবসার প্রধান কেন্দ্র ছিল।

জেলাটির ১৪ শতকের একটি সমৃদ্ধ ইতিহাস রয়েছে। রাজা দনুজমর্দন প্রতিষ্ঠিত চন্দ্রদ্বীপের স্বাধীন রাজ্যের রাজধানী ছিল এটি ১৬ শতকে মুঘলরা রাজ্যটি জয় করে।

বরিশাল জেলার উপজেলা/থানা সমূহ

বরিশাল জেলা ১০ টি থানা/উপজেলা নিয়ে গঠিত, যা হলো:

  1. বরিশাল সদর উপজেলা,
  2. বানারীপাড়া উপজেলা,
  3. বাকেরগঞ্জ উপজেলা,
  4. বাবুগঞ্জ উপজেলা,
  5. গৌরনদী উপজেলা,
  6. হিজলা উপজেলা,
  7. মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা,
  8. আগৈলঝাড়া উপজেলা,
  9. উজিরপুর উপজেলা,
  10. মুলাদী উপজেলা।

এখানে প্রতিটি থানা/উপজেলা সম্পর্কে কিছু তথ্য রয়েছে:

  • বরিশাল সদর উপজেলা: বরিশাল সদর উপজেলা বরিশাল জেলার প্রশাসনিক সদর দপ্তর। এটি মেঘনা নদীর তীরে অবস্থিত এবং বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সরকারি অফিস, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের আবাসস্থল।
  • বানারপাড়া উপজেলা: বরিশাল সদর উপজেলার দক্ষিণে বানারপাড়া উপজেলা অবস্থিত।
  • বাকেরগঞ্জ উপজেলা: বাকেরগঞ্জ উপজেলা বরিশাল সদর উপজেলার পশ্চিমে অবস্থিত।
  • বাবুগঞ্জ উপজেলা: বরিশাল সদর উপজেলার উত্তরে বাবুগঞ্জ উপজেলা অবস্থিত।
  • গৌরনদী উপজেলা: বরিশাল সদর উপজেলার পূর্বে গৌরনদী উপজেলা অবস্থিত।
  • হিজলা উপজেলা: বরিশাল সদর উপজেলার দক্ষিণে হিজলা উপজেলা অবস্থিত।
  • মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা: মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা বরিশাল সদর উপজেলার পশ্চিমে অবস্থিত।
  • আগৈলঝাড়া উপজেলা: বরিশাল সদর উপজেলার উত্তরে আগৈলঝাড়া উপজেলা অবস্থিত।
  • উজিরপুর উপজেলা: বরিশাল সদর উপজেলার পূর্বে উজিরপুর উপজেলা অবস্থিত।
  • মুলাদী উপজেলা: বরিশাল সদর উপজেলার দক্ষিণে মুলাদী উপজেলা অবস্থিত।

বরিশাল জেলার দর্শনীয় স্থান সমূহ

এখানে বরিশাল জেলার কিছু জনপ্রিয় পর্যটন আকর্ষণ রয়েছে:

কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত

কুয়াকাটা বাংলাদেশের অন্যতম জনপ্রিয় পর্যটন স্থান। এটি তার সুন্দর সমুদ্র সৈকত, সবুজ বন এবং অত্যাশ্চর্য সূর্যোদয় এবং সূর্যাস্তের জন্য পরিচিত।

গুঠিয়া বায়তুল আমান জামে মসজিদ কমপ্লেক্স

এই মসজিদটি বাংলাদেশের প্রাচীনতম এবং বৃহত্তম মসজিদগুলির মধ্যে একটি। এটি 17 শতকে নির্মিত হয়েছিল এবং এটি মুঘল স্থাপত্যের একটি চমৎকার উদাহরণ।

দুর্গা সাগর

এই হ্রদটি নৌবিহার, মাছ ধরা এবং পিকনিকের জন্য একটি জনপ্রিয় স্থান। এটি পাখি, মাছ এবং কুমির সহ বিভিন্ন বন্যপ্রাণীর আবাসস্থল।

লাকুটিয়া জমিদার বাড়ি

এই অট্টালিকাটি ঊনবিংশ শতাব্দীতে একজন ধনী জমিদার তৈরি করেছিলেন। এটি এখন একটি জাদুঘর যেখানে জমিদারের আমলের নিদর্শনগুলির একটি সংগ্রহ রয়েছে।

বিবির পুকুর

এই পুকুরটি বিবি নামের এক মহিলার প্রেতাত্মায় আচ্ছন্ন বলে জানা গেছে। এটি ভূত শিকারিদের জন্য একটি জনপ্রিয় স্থান এবং যারা প্যারানরমাল বিষয়ে আগ্রহী।

বরিশাল বিভাগীয় জাদুঘর

এই জাদুঘরে বরিশাল জেলার ইতিহাস ও সংস্কৃতির নিদর্শন সংগ্রহ করা হয়েছে। জেলার সমৃদ্ধ ইতিহাস সম্পর্কে জানার জন্য এটি একটি দুর্দান্ত জায়গা।

বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর স্মৃতি জাদুঘর

এই জাদুঘরটি বাংলাদেশী যুদ্ধ বীর ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীরের স্মৃতির উদ্দেশ্যে নিবেদিত। জাদুঘরে ক্যাপ্টেন জাহাঙ্গীরের জীবন ও কর্মজীবনের নিদর্শন সংগ্রহ করা হয়েছে।

কলসোকাঠি জমিদার বাড়ি

এই অট্টালিকাটি ১৯ শতকে একজন ধনী জমিদার তৈরি করেছিলেন। এটি এখন একটি জাদুঘর যেখানে জমিদারের আমলের নিদর্শনগুলির একটি সংগ্রহ রয়েছে।

মিয়া বাড়ি মসজিদ

এই মসজিদটি ১৬ শতকে নির্মিত হয়েছিল এবং এটি বাঙালি স্থাপত্যশৈলীর একটি চমৎকার নিদর্শন।

অক্সফোর্ড মিশন চার্চ

এই গির্জাটি ১৯ শতকে ব্রিটিশ মিশনারিদের দ্বারা নির্মিত হয়েছিল। এটি এখন একটি জনপ্রিয় পর্যটন গন্তব্য এবং খ্রিস্টানদের উপাসনালয়।

বরিশাল জেলার অনেক পর্যটন আকর্ষণের মধ্যে এগুলো মাত্র কয়েকটি।

বরিশাল জেলার পার্ক সমূহ

বরিশাল জেলায় জনপ্রিয় কিছু পাবলিক পার্ক সম্পর্কে:

বরিশাল সিটি পার্ক

জেলার সবচেয়ে বড় পার্ক বরিশাল সিটি পার্ক। এটি শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত এবং স্থানীয় এবং পর্যটকদের কাছে একইভাবে একটি জনপ্রিয় স্থান। পার্কটিতে একটি হ্রদ, একটি খেলার মাঠ, একটি চিড়িয়াখানা এবং বেশ কয়েকটি রেস্তোরাঁ এবং ক্যাফে সহ বিভিন্ন আকর্ষণ রয়েছে৷

শেরেবাংলা পার্ক

শেরেবাংলা পার্ক বরিশালের আরেকটি জনপ্রিয় পার্ক। এটি আড়িয়াল বিলের তীরে অবস্থিত এবং বিশ্রাম নেওয়ার এবং প্রাকৃতিক দৃশ্য উপভোগ করার জন্য এটি একটি দুর্দান্ত জায়গা। পার্কটিতে অনেকগুলি গাছ এবং ফুলের পাশাপাশি একটি খেলার মাঠ এবং অনেকগুলি বেঞ্চ রয়েছে৷

বরিশাল বোটানিক্যাল গার্ডেন শের-ই-বাংলা পার্কে অবস্থিত এবং গাছ, ফুল এবং গুল্ম সহ বিভিন্ন ধরনের উদ্ভিদের আবাসস্থল। বাগানটি বিশ্রাম নেওয়ার এবং প্রাকৃতিক দৃশ্য উপভোগ করার একটি দুর্দান্ত জায়গা।

বরিশাল ওয়াটার পার্ক

বরিশাল ওয়াটার পার্ক গরমের দিনে ঠাণ্ডা করার জন্য একটি দুর্দান্ত জায়গা। পার্কটিতে অনেকগুলি জলের স্লাইড, সেইসাথে একটি পুল এবং অনেকগুলি ফোয়ারা রয়েছে৷

বরিশাল জেলার অনেকগুলো পাবলিক পার্কের মধ্যে এগুলি কয়েকটি। প্রত্যেকের জন্য কিছু না কিছু আছে, তাই আপনার পছন্দের জায়গাটি অন্বেষণ এবং খুঁজে পেতে ভুলবেন না।

যে কারনে বরিশাল জেলা বিখ্যাত

বরিশাল জেলা বিখ্যাত হওয়ার কিছু কারণ এখানে দেওয়া হল:

  • প্রাকৃতিক সৌন্দর্য: বরিশালের চারপাশ নদী, খাল, বন-জঙ্গলে ঘেরা। এই শহরটি বিশ্বের বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবনের আবাসস্থল।
  • সমৃদ্ধ সংস্কৃতি: বরিশালের একটি সমৃদ্ধ সংস্কৃতি রয়েছে যা গাঙ্গেয় ব-দ্বীপ অঞ্চলের অবস্থান দ্বারা প্রভাবিত হয়। শহরটিতে বরিশাল বিভাগীয় জাদুঘর, গুঠিয়া বায়তুল আমান জামে মসজিদ কমপ্লেক্স এবং দুর্গা সাগর সহ অনেক ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক নিদর্শন রয়েছে।
  • সুস্বাদু খাবার: বরিশাল তার সুস্বাদু খাবারের জন্য পরিচিত। বরিশালের কিছু জনপ্রিয় খাবারের মধ্যে রয়েছে বালাম চাল, পান এবং হগ বরই।
  • পরিবহন হাব: বরিশাল বাংলাদেশের একটি প্রধান নদীবন্দর এবং পরিবহন কেন্দ্র। শহরটি দেশের অন্যান্য অংশের সাথে সড়ক, রেল ও নদীপথে সংযুক্ত।

আপনি যদি একটি সমৃদ্ধ সংস্কৃতি, প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং সুস্বাদু খাবারের একটি শহর খুঁজছেন, তাহলে বরিশাল ভ্রমণের জন্য একটি চমৎকার জায়গা।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Oops!
সম্ভবত আপনার ইন্টারনেট সংযোগে ত্রুটি হয়েছে!!