গাজীপুর জেলার তথ্য, ইতিহাস ও দর্শনীয় স্থান সমূহ

গাজীপুর বাংলাদেশের ঢাকা বিভাগের একটি জেলা। এটি বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার ২৫ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে অবস্থিত। গাজীপুর বাংলাদেশের একটি প্রধান শিল্প ও বাণিজ্যিক কেন্দ্র। এটি বেশ কয়েকটি পোশাক কারখানার পাশাপাশি অন্যান্য শিল্প যেমন খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ, ফার্মাসিউটিক্যালস এবং ইলেক্ট্রনিক্সের আবাসস্থল। গাজীপুরও একটি প্রধান পরিবহন হাব। এটি ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক এবং ঢাকা-সিলেট রেললাইনে অবস্থিত। ভাওয়াল জাতীয় উদ্যান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক, এবং গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন সহ এই জেলায় অনেক ঐতিহাসিক এবং সাংস্কৃতিক আকর্ষণ রয়েছে।

এটি একটি দ্রুত বর্ধনশীল জেলা যেখানে দর্শনার্থীদের জন্য অনেক কিছু রয়েছে। এটি বাংলাদেশের সংস্কৃতি এবং ইতিহাস, সেইসাথে একটি আধুনিক শহরের হিসেবে দুর্দান্ত জায়গা।

Gazipur-District

গাজীপুর নামকরণ ও জেলার ইতিহাস

গাজীপুর জেলার নামকরণের ইতিহাস দীর্ঘ এবং জটিল। এই অঞ্চলটি হাজার হাজার বছর ধরে বসবাস করছে এবং বিভিন্ন সাম্রাজ্য এবং রাজ্যের দ্বারা শাসিত হয়েছে। ফলে শতাব্দীর পর শতাব্দীতে বহুবার এই এলাকার নাম বদলেছে।

এই অঞ্চলের প্রাচীনতম নাম হল ভাওয়াল, যা পাল সাম্রাজ্যের সময় ব্যবহৃত হত। পালরা ছিল একটি বৌদ্ধ রাজবংশ যারা ৮ম থেকে ১২ শতক পর্যন্ত বাংলাদেশ এবং উত্তর-পূর্ব ভারতের বেশিরভাগ অংশ শাসন করেছিল। ভাওয়াল ছিল পাল সাম্রাজ্যের অন্যতম রাজধানী এবং বৌদ্ধ শিক্ষা ও সংস্কৃতির একটি প্রধান কেন্দ্র ছিল।

পাল সাম্রাজ্যের পতনের পর অঞ্চলটি সেন, দেব এবং বর্মণ সহ বিভিন্ন রাজ্যের দ্বারা শাসিত হয়েছিল। এই সময়কালে এলাকার নাম বেশ কয়েকবার পরিবর্তিত হয়, তবে সাধারণত এটি ভাওয়াল বা ভাওয়াল পরগণা নামে পরিচিত ছিল।

ষোড়শ শতাব্দীতে মুঘল সাম্রাজ্য বাংলাদেশ জয় করে। গাজী শাহ নামে এক মুসলিম সাধকের নামে মুঘলরা গাজীপুর এলাকাটির নাম পরিবর্তন করে। মুঘল আমলে গাজীপুর ব্যবসা-বাণিজ্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে পরিণত হয় এবং এর জনসংখ্যা দ্রুত বৃদ্ধি পায়।

মুঘল সাম্রাজ্যের পতনের পর, গাজীপুর বাংলার নবাব ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি এবং ব্রিটিশ রাজ সহ বিভিন্ন রাজবংশ দ্বারা শাসিত হয়। এ সময় জুড়ে এলাকার নাম গাজীপুর থেকে যায়।

১৯৪৭ সালে বাংলাদেশ পাকিস্তান থেকে স্বাধীনতা লাভ করে। গাজীপুর নতুন দেশের একটি জেলা হয়ে ওঠে এবং এর জনসংখ্যা দ্রুত বৃদ্ধি পেতে থাকে। বর্তমানে গাজীপুর বাংলাদেশের অন্যতম জনবহুল জেলা, এবং এটি শিল্প ও বাণিজ্যের একটি প্রধান কেন্দ্র।

গাজীপুর জেলার উপজেলা/থানা সমূহ

গাজীপুর জেলা মোট ৫টি থানা/উপজেলা নিয়ে গঠিত:

  1. কালীগঞ্জ উপজেলা,
  2. কালিয়াকৈর উপজেলা,
  3. কাপাসিয়া উপজেলা,
  4. গাজীপুর সদর উপজেলা,
  5. শ্রীপুর উপজেলা।

গাজীপুর জেলার দর্শনীয় স্থান সমূহ

এখানে বাংলাদেশের গাজীপুর জেলার কিছু জনপ্রিয় পর্যটন আকর্ষণ রয়েছে:

নুহাশ পল্লী

গাজীপুরে অবস্থিত নুহাশ পল্লী একটি সাংস্কৃতিক পল্লী। গ্রামটিতে বেশ কিছু ঐতিহ্যবাহী বাংলাদেশি বাড়ি, সেইসাথে অনেকগুলি সাংস্কৃতিক কেন্দ্র রয়েছে। নুহাশ পল্লীতে দর্শনার্থীরা বাংলাদেশী সংস্কৃতি ও ইতিহাস সম্পর্কে জানতে পারবেন।

ভাওয়াল রাজবাড়ী

ভাওয়াল রাজবাড়ী গাজীপুরে অবস্থিত একটি প্রাক্তন প্রাসাদ। ঊনবিংশ শতাব্দীতে ভাওয়ালের জমিদাররা এই প্রাসাদটি তৈরি করেছিলেন। প্রাসাদটি এখন একটি যাদুঘর, এবং এটি জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত।

ভাওয়াল জাতীয় উদ্যান

এটি গাজীপুরে অবস্থিত একটি জাতীয় উদ্যান। পার্কটি বাঘ, হাতি এবং হরিণ সহ বিভিন্ন প্রাণীর আবাসস্থল। দর্শনার্থীরা পার্কের মধ্য দিয়ে একটি সাফারি রাইড নিতে পারেন যাতে প্রাণীগুলিকে কাছে থেকে দেখতে পাওয়া যায়।

সুলতানপুর দরগাপাড়া শাহী মসজিদ

এটি গাজীপুরে অবস্থিত একটি মসজিদ। মসজিদটি ১৭ শতকে নির্মিত হয়েছিল এবং এটি বাংলাদেশের অন্যতম প্রাচীন মসজিদ।

গাজীপুর জেলার পাবলিক পার্ক সমূহ

এখানে গাজীপুর জেলার কিছু পাবলিক পার্ক রয়েছে:

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক

গাজীপুরে অবস্থিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক একটি জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র। পার্কটি সিংহ, বাঘ, হাতি এবং জিরাফ সহ বিভিন্ন প্রাণীর আবাসস্থল। দর্শনার্থীরা পার্কের মধ্য দিয়ে একটি সাফারি রাইড নিতে পারেন যাতে প্রাণীগুলিকে কাছাকাছি দেখা যায়।

গাজীপুর সিটি পার্ক

এটি গাজীপুর শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত একটি বড় পার্ক। এটি মানুষের কাছে বিশ্রাম নেওয়ার এবং বাইরে উপভোগ করার জন্য একটি জনপ্রিয় স্থান। পার্কটিতে খেলার মাঠ, সুইমিং পুল এবং জগিং ট্র্যাক সহ বিভিন্ন সুবিধা রয়েছে।

গাজীপুর ক্যান্টনমেন্ট পার্ক

এটি গাজীপুর সেনানিবাসে অবস্থিত একটি বড় পার্ক। এটি মানুষের কাছে বিশ্রাম নেওয়ার এবং বাইরে উপভোগ করার জন্য একটি জনপ্রিয় স্থান। পার্কটিতে খেলার মাঠ, সুইমিং পুল এবং জগিং ট্র্যাক সহ বিভিন্ন সুবিধা রয়েছে।

কালিয়াকৈর উপজেলা পার্ক

এটি গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলায় অবস্থিত একটি ছোট পার্ক। এটি মানুষের কাছে বিশ্রাম নেওয়ার এবং বাইরে উপভোগ করার জন্য একটি জনপ্রিয় স্থান। পার্কটিতে একটি খেলার মাঠ এবং একটি জগিং ট্র্যাক রয়েছে।

নবীগঞ্জ উপজেলা পার্ক

এটি গাজীপুরের নবীগঞ্জ উপজেলায় অবস্থিত একটি ছোট পার্ক। এটি মানুষের কাছে বিশ্রাম নেওয়ার এবং বাইরে উপভোগ করার জন্য একটি জনপ্রিয় স্থান। পার্কটিতে একটি খেলার মাঠ এবং একটি জগিং ট্র্যাক রয়েছে।

যে কারনে গাজীপুর জেলা বিখ্যাত

গাজীপুর জেলা অনেক কিছুর জন্য বিখ্যাত, যার মধ্যে রয়েছে:

  • বিশ্ব ইজতেমা: বিশ্ব ইজতেমা হল বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম বার্ষিক মুসলিম সমাবেশ, যেখানে ৫ মিলিয়নেরও বেশি উপস্থিতি রয়েছে। গাজীপুরের টঙ্গীতে প্রতিবছর অনুষ্ঠিত হয়।
  • বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক গাজীপুরে অবস্থিত একটি ২৫০ একর বন্যপ্রাণী পার্ক। এটি সিংহ, বাঘ, হাতি এবং হরিণ সহ বিভিন্ন ধরণের প্রাণীর বাসস্থান।
  • ভাওয়াল জাতীয় উদ্যান: ভাওয়াল জাতীয় উদ্যান গাজীপুরে অবস্থিত ১০০-বর্গকিলোমিটারের একটি বন্যপ্রাণী পার্ক। এটি বাঘ, হাতি এবং হরিণ সহ বিভিন্ন প্রাণীর আবাসস্থল।
  • বঙ্গবন্ধু হাই-টেক সিটি: বঙ্গবন্ধু হাই-টেক সিটি গাজীপুরে অবস্থিত একটি বিজনেস পার্ক। এটি দেশের একমাত্র ব্যবসায়িক পার্ক এবং বহুজাতিক কোম্পানির আবাসস্থল।
  • গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন: গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন হল একটি সিটি কর্পোরেশন যা গাজীপুর শহরের প্রশাসনিক ব্যবস্থা করে। এটি বাংলাদেশের বৃহত্তম সিটি কর্পোরেশনগুলির মধ্যে একটি।

গাজীপুরও একটি প্রধান শিল্প শহর এবং এখানে গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি, টেক্সটাইল মিল এবং ওষুধের কারখানা সহ বেশ কিছু কারখানা রয়েছে। এটি একটি প্রধান পরিবহন হাব এবং বেশ কয়েকটি হাইওয়ে এবং রেলওয়ের আবাসস্থল।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Oops!
সম্ভবত আপনার ইন্টারনেট সংযোগে ত্রুটি হয়েছে!!