ঝালকাঠি জেলার দর্শনীয় স্থান, ইতিহাস ও তথ্য সমূহ

ঝালকাঠি বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের একটি জেলা, এটি বরিশাল বিভাগে অবস্থিত। এর উত্তরে ও পূর্বে বরিশাল জেলা, দক্ষিণে বরগুনা জেলা ও বিষখালী নদী, পশ্চিমে লোহাগড়া উপজেলা ও পিরোজপুর জেলা। এই জেলার প্রধান নদীগুলো হলো বিষখালী, ধানসিঁড়ি, গাবখান, সুগন্ধা, জাঙ্গালিয়া, বামন্দা ও বাজিতপুর।

এই জেলাটি প্রাচীন নগরী চন্দ্রাবতীর ধ্বংসাবশেষ, শাহ আমানতের সমাধি এবং ঝালকাঠি জাদুঘর সহ বেশ কয়েকটি ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক স্থানের আবাসস্থল। জেলাটি তার সৈকত, বন এবং নদী সহ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্যও পরিচিত।

ঝালকাঠি জেলার অর্থনীতি কৃষি, মাছ ধরা এবং বনায়নের উপর ভিত্তি করে। জেলায় উৎপাদিত প্রধান ফসল হল ধান, পাট এবং শাকসবজি। এছাড়াও জেলাটি বেশ কয়েকটি মৎস্য ও বনজ শিল্পের আবাসস্থল।

Jhalkathi-District

ঝালকাঠি জেলার ইতিহাস

ঝালকাঠি বাংলাদেশের বরিশাল বিভাগের একটি জেলা। এটি 1984 সালে পটুয়াখালী জেলা থেকে বিভক্ত হয়ে সৃষ্টি হয়। এর মধ্য দিয়ে প্রবাহিত ঝালকাঠি নদীর নামানুসারে জেলার নামকরণ করা হয়েছে।

ঝালকাঠি নামটি এসেছে বাংলা শব্দ "ঝালো" থেকে, যার অর্থ "ফুলে যাওয়া"। বর্ষা মৌসুমে নদী যেভাবে স্ফীত হয় তার উল্লেখ করে।

জেলার একটি দীর্ঘ এবং সমৃদ্ধ ইতিহাস রয়েছে। এটি একসময় চন্দ্রকেতুগড় রাজ্যের অংশ ছিল, যেটি 7 ম শতাব্দীতে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ও এই জেলাটি মুঘল, ব্রিটিশ এবং জাপানিদের দ্বারা শাসিত হয়েছিল।

ঝালকাঠি একটি প্রধানত কৃষিপ্রধান জেলা। জেলায় উৎপাদিত প্রধান ফসল হল ধান, পাট ও ধান। এছাড়াও জেলাটিতে টেক্সটাইল, সিরামিক এবং মাছ ধরা সহ বেশ কয়েকটি শিল্পের আবাসস্থল।

ঝালকাঠি একটি জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র। জেলাটি চন্দ্রকেতুগড় রাজ্যের ধ্বংসাবশেষ, ঝালকাটি নদী এবং সুন্দরবনের ম্যানগ্রোভ বন সহ বেশ কয়েকটি ঐতিহাসিক এবং প্রাকৃতিক আকর্ষণের আবাসস্থল।

ঝালকাঠি জেলার উপজেলা/থানা সমূহ

ঝালকাঠি জেলা চারটি থানা/উপজেলা নিয়ে গঠিত:

  1. ঝালকাঠি সদর উপজেলা,
  2. কাঁঠালিয়া উপজেলা,
  3. নলছিটি উপজেলা,
  4. রাজাপুর উপজেলা।

প্রতিটি উপজেলাকে আবার ইউনিয়ন পরিষদে এবং গ্রামে বিভক্ত করা হয়েছে, যেগুলো বাংলাদেশের সবচেয়ে ছোট প্রশাসনিক ইউনিট।

এখানে ঝালকাঠি জেলার প্রতিটি উপজেলা সম্পর্কে আরও কিছু তথ্য রয়েছে:

ঝালকাটি সদর উপজেলা

ঝালকাটি সদর উপজেলা ঝালকাঠি জেলার প্রশাসনিক সদর দপ্তর। এটি বিষখালী নদীর তীরে অবস্থিত এবং এখানে বেশ কয়েকটি সরকারি অফিস, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

কাঠালিয়া উপজেলা

ঝালকাটি সদর উপজেলার উত্তরে কাঠালিয়া উপজেলার অবস্থান। এটি একটি প্রধান কৃষি এলাকা, এবং প্রাকৃতিক গ্যাস এবং কয়লা সহ অনেক প্রাকৃতিক সম্পদের আবাসস্থল।

নলছিটি উপজেলা

নলছিটি উপজেলা ঝালকাঠি সদর উপজেলার দক্ষিণে অবস্থিত। এটি একটি প্রধান মাছ ধরার এলাকা এবং এটি চুনাপাথর এবং বালি সহ অনেক প্রাকৃতিক সম্পদের আবাসস্থল।

রাজাপুর উপজেলা

রাজাপুর উপজেলা ঝালকাঠি সদর উপজেলার পশ্চিমে অবস্থিত। এটি একটি প্রধান কৃষি এলাকা, এবং প্রাকৃতিক গ্যাস এবং কয়লা সহ অনেক প্রাকৃতিক সম্পদের আবাসস্থল।

ঝালকাঠি জেলার দর্শনীয় স্থান সমূহ

এখানে ঝালকাঠি জেলার কিছু জনপ্রিয় পর্যটন আকর্ষণ রয়েছে:

ভাসমান বাজার

ঝালকাঠির ভাসমান বাজার একটি অনন্য এবং আকর্ষণীয় অভিজ্ঞতা। প্রতিদিন সকালে বর্ষাকালে পেয়ারা চাষীরা তাদের উৎপাদিত পণ্য বিক্রি করতে নৌকায় ভিড় জমায়। বাজার একটি রঙিন এবং প্রাণবন্ত দর্শনীয়, এবং এটি স্থানীয় সংস্কৃতির অভিজ্ঞতার একটি দুর্দান্ত উপায়।

কীর্তিপাশা জমিদার বাড়ি

কীর্তিপাশা জমিদার বাড়ি একটি সুন্দর এবং ঐতিহাসিক অট্টালিকা যা ১৮ শতকে নির্মিত হয়েছিল। প্রাসাদটি এখন একটি যাদুঘর, এবং এতে জমিদার যুগের নিদর্শন ও আসবাবপত্রের সংগ্রহ রয়েছে।

সাটুরিয়া জমিদার বাড়ি

সাটুরিয়া জমিদার বাড়ি আরেকটি সুন্দর এবং ঐতিহাসিক প্রাসাদ যা ১৮ শতকে নির্মিত। প্রাসাদটি এখন একটি সরকার-চালিত পর্যটন কমপ্লেক্স, এবং এটি বিভিন্ন ধরনের আবাসন এবং খাবারের বিকল্প সরবরাহ করে।

হযরত দাউদ শাহ মাজার

হজরত দাউদ শাহ মাজার হল একটি মাজার যা সুফি সাধক হযরত দাউদ শাহকে উৎসর্গ করা হয়। মাজারটি চারঘাটারকান্দা গ্রামে অবস্থিত এবং এটি সারা বাংলাদেশের মুসলমানদের কাছে একটি জনপ্রিয় তীর্থস্থান।

সিটি পার্ক

সিটি পার্ক হল একটি সুন্দর এবং সুপরিচালিত পার্ক যা ঝালকাঠি শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত। পার্কটি আরাম করার এবং বাইরে উপভোগ করার জন্য একটি দুর্দান্ত জায়গা, এবং এটিতে একটি খেলার মাঠ, একটি সুইমিং পুল এবং একটি রেস্তোরাঁ সহ বেশ কয়েকটি সুবিধা রয়েছে৷

বেসনাই মল্লিকের দীঘি

বেসনাই মল্লিকের দীঘি একটি বড় এবং সুন্দর পুকুর যা রমানাথপুর গ্রামে অবস্থিত। পুকুরটি সাঁতার, বোটিং এবং মাছ ধরার জন্য একটি জনপ্রিয় জায়গা।

মিয়া বাড়ি মসজিদ

মিয়া বাড়ি মসজিদ একটি সুন্দর এবং ঐতিহাসিক মসজিদ যা ১৮ শতকে নির্মিত হয়েছিল। মসজিদটি ভারুকাঠি গ্রামে অবস্থিত এবং এটি একটি জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র।

শেরে-ই-বাংলার দাদা-দাদির বাড়ি

শের-ই-বাংলার দাদা-দাদির বাড়ি হল বিখ্যাত বাঙালি রাজনীতিবিদ ও রাষ্ট্রনায়ক এ.কে.-এর শৈশবকালীন বাড়ি। ফজলুল হক। বাড়িটি সাটুরিয়া গ্রামে অবস্থিত, এবং এটি এখন একটি যাদুঘর যা এ.কে.-এর জীবন ও কাজের জন্য নিবেদিত। ফজলুল হক।

ঝালকাঠি জেলার পার্ক সমূহ

ঝালকাঠি জেলার পাবলিক পার্কগুলির মধ্যে রয়েছে:

ঝালকাঠি সরকারি উদ্যান

এই পার্কটি ঝালকাঠি শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত। স্থানীয় এবং পর্যটকদের কাছে এটি একটি জনপ্রিয় স্থান। পার্কটিতে একটি বড় পুকুর, একটি খেলার মাঠ এবং বেশ কয়েকটি বেঞ্চ এবং গাছ রয়েছে। এটি বিশ্রাম এবং তাজা বাতাস উপভোগ করার একটি দুর্দান্ত জায়গা।

ডুমুরিয়া সরকারী উদ্যান

এই পার্কটি ডুমুরিয়া উপজেলায় অবস্থিত। এটি ঝালকাঠি সরকারি উদ্যানের চেয়ে ছোট একটি পার্ক, তবে এটি এখনও স্থানীয়দের কাছে একটি জনপ্রিয় স্থান। পার্কটিতে একটি খেলার মাঠ, বেশ কয়েকটি বেঞ্চ এবং গাছ এবং একটি ছোট পুকুর রয়েছে।

নলচিরা সরকারি উদ্যান

এই পার্কটি নলচিরা উপজেলায় অবস্থিত। এটি একটি খেলার মাঠ, অনেকগুলি বেঞ্চ এবং গাছ এবং একটি ছোট পুকুর সহ একটি ছোট পার্ক৷

নলচিরা ট্যুরিস্ট পার্ক

এই পার্কটি নলচিরা উপজেলায় অবস্থিত। এটি পর্যটকদের কাছে একটি জনপ্রিয় স্থান। পার্কটিতে একটি বড় পুকুর, একটি খেলার মাঠ, অনেকগুলি বেঞ্চ এবং গাছ এবং বেশ কয়েকটি খাবারের স্টল রয়েছে।

কলাপাড়া ট্যুরিস্ট পার্ক

এই পার্কটি কলাপাড়া উপজেলায় অবস্থিত। পর্যটকদের কাছে এটি একটি জনপ্রিয় স্থান। পার্কটিতে একটি বড় সমুদ্র সৈকত, বেশ কয়েকটি বেঞ্চ এবং গাছ এবং বেশ কয়েকটি খাবারের স্টল রয়েছে।

যে কারনে ঝালকাঠি জেলা বিখ্যাত

ঝালকাঠি জেলা তার সুন্দর নদী এবং খাল, এর সুস্বাদু পেয়ারা এবং ঐতিহ্যবাহী শীতল মাদুরের জন্য বিখ্যাত। জেলাটি বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে বঙ্গোপসাগরের উপকূলে অবস্থিত। এর নদী এবং খালগুলির নেটওয়ার্ক দ্বারা ক্রসক্রস করা হয়েছে, যা সবুজ গ্রামাঞ্চলের জন্য একটি সুন্দর পটভূমি প্রদান করে। ঝালকাঠিতে সুজাবাদ দুর্গ, কীর্ত্তিপাসা প্রাসাদ এবং মিয়া বাড়ি মসজিদ সহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক স্থান রয়েছে।

প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং ঐতিহাসিক গুরুত্ব ছাড়াও ঝালকাঠি তার সুস্বাদু পেয়ারার জন্যও পরিচিত। জেলাটি বাংলাদেশের পেয়ারা উৎপাদনকারী একটি বৃহত্তম এবং ফলটি একটি জনপ্রিয় রপ্তানিযোগ্য। ঝালকাটি পেয়ারা তাদের মিষ্টি, রসালো মাংস এবং তাদের সূক্ষ্ম ত্বকের জন্য পরিচিত।

ঝালকাঠি একটি সমৃদ্ধ ঐতিহ্যবাহী শীতল ম্যাট শিল্পের আবাসস্থল। পাট, বাঁশ এবং তালপাতা সহ বিভিন্ন উপকরণ থেকে শীতল মাদুর তৈরি করা হয়। ম্যাটগুলি ঘুমানোর জন্য, বসার জন্য এবং একটি আলংকারিক আইটেম হিসাবে ব্যবহার করা হয়। ঝালকাঠিতে আসা পর্যটকদের কাছে শীতল মাদুর একটি জনপ্রিয় স্যুভেনির।

আপনি যদি একটি সুন্দর, আরামদায়ক, এবং সাংস্কৃতিকভাবে সমৃদ্ধ গন্তব্য খুঁজছেন, ঝালকাটি জেলা একটি দুর্দান্ত পছন্দ। ইতিহাস ও সংস্কৃতি প্রেমী থেকে শুরু করে প্রকৃতিপ্রেমী এবং ভোজনরসিক সকলের কাছেই এই জেলাটির কিছু না কিছু আছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Oops!
সম্ভবত আপনার ইন্টারনেট সংযোগে ত্রুটি হয়েছে!!