কুষ্টিয়া জেলার ইতিহাস, দর্শনীয় স্থান ও তথ্য সমূহ

কুষ্টিয়া জেলা বাংলাদেশের পশ্চিমাঞ্চলের খুলনা বিভাগের একটি জেলা। কুষ্টিয়া বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম পৌরসভা এবং দেশের ১১তম বৃহত্তম শহর। ভারত বিভাগের পর থেকে কুষ্টিয়া একটি পৃথক জেলা হিসেবে বিদ্যমান। এর আগে কুষ্টিয়া নদীয়া জেলার অন্তর্গত ছিল। কুষ্টিয়া জেলার আয়তন প্রায় ১৬০৮.৮০ বর্গ কিলোমিটার এবং এর উত্তরে রাজশাহী, নাটোর, পাবনা জেলা, দক্ষিণে চুয়াডাঙ্গা, ঝিনাইদহ জেলা, পূর্বে রাজবাড়ী জেলা এবং পশ্চিমে পশ্চিমবঙ্গ ও মেহেরপুর জেলা দ্বারা সীমানা। গঙ্গা, গোরাই-মধুমতি, মাথাভাঙ্গা, কালিগঙ্গা এবং কুমার জেলার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত প্রধান নদী।

কুষ্টিয়া জেলা বাংলাদেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ কৃষি জেলা। জেলায় উৎপাদিত প্রধান ফসল ধান, পাট, গম, ভুট্টা এবং শাকসবজি। জেলাটিতে টেক্সটাইল, চিনিকল এবং সিরামিক সহ বেশ কয়েকটি শিল্পের আবাসস্থল। কুষ্টিয়া জেলা একটি দীর্ঘ ইতিহাস সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক জেলা।

জেলাটিতে লালন শাহের সমাধি, মীর মশাররফ হোসেন স্মৃতিসৌধ এবং বাঘা যতীন স্মৃতিসৌধ সহ বেশ কিছু ঐতিহাসিক নিদর্শনের আবাসস্থল। জেলায় লালন মেলা এবং বাঘা যতীন মেলা সহ বেশ কয়েকটি উৎসবের আবাসস্থল। জেলাটি কুষ্টিয়া রেলওয়ে স্টেশন এবং কুষ্টিয়া বিমানবন্দর দ্বারা পরিসেবা প্রদান করা হয়। জেলাটি বাংলাদেশের প্রধান শহরগুলির সাথে সড়কপথেও সু-সংযুক্ত।

Kushtia-District

কুষ্টিয়া জেলার ইতিহাস

হ্যামিল্টনের গেজেটিয়ারের উল্লেখ থেকে কুষ্টিয়া নামটি এসেছে। হ্যামিল্টনের গেজেটিয়ারে কুষ্টিয়া (কুষ্টি) শহরের উল্লেখ করা হয়েছে এবং স্থানীয় লোকেরা এই শহরটিকে কুষ্টে বলে ডাকে। কুষ্টিয়া কোনো প্রাচীন জনপদ নয়। সম্রাট শাহজাহানের শাসনামলে এটি একটি নদীবন্দর হিসেবে শুরু হয়। ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি কুষ্টিয়াকে নীল ব্যবসার জন্য ব্যবহার করত।

  • সাল ১৮৬০: নীল বিদ্রোহ সমগ্র বাংলা প্রদেশে ছড়িয়ে পড়ে। কুষ্টিয়া জেলার শালঘর মধুয়া এই আন্দোলনের অন্যতম অগ্রদূত ছিলেন। এটি কুষ্টিয়ার সকল নীল চাষীদের সরকারী কর প্রদান থেকে বিরত থাকতে অনুপ্রাণিত করেছিল। পরবর্তীকালে, নীল কমিশনের প্রতিবেদন প্রকাশের সাথে সাথে, নীল চাষের জন্য কৃষকদের জবরদস্তি নিষিদ্ধ করে একটি আইন পাস করা হয় এবং এই ব্যবস্থাটি আন্দোলনের সমাপ্তি ঘটায়।
  • সাল ১৯৪৭: ভারত বিভাগের সময়, নদীয়া জেলার তিনটি মহকুমা অর্থাৎ কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা এবং মেহেরপুরকে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের কুষ্টিয়া একটি নতুন জেলায় পরিণত করা হয়।
  • সাল ১৯৭১: বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর, কুষ্টিয়া নবগঠিত দেশের একটি জেলায় পরিণত হয়।

বর্তমানে কুষ্টিয়া প্রায় ২ মিলিয়নেরও বেশি জনসংখ্যার একটি সমৃদ্ধ জেলা। এটি কৃষি, শিল্প ও বাণিজ্যের একটি প্রধান কেন্দ্র। কুষ্টিয়া দূর্গের ধ্বংসাবশেষ, কুষ্টিয়া জাদুঘর এবং কুষ্টিয়া রেলওয়ে স্টেশন সহ বেশ কিছু ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক স্থানও এই জেলায় রয়েছে।

কুষ্টিয়া জেলার থানা/উপজেলা সমূহ

জেলার ছয়টি থানা/উপজেলা রয়েছে:

  1. কুষ্টিয়া সদর উপজেলা,
  2. কুমারখালী উপজেলা,
  3. দৌলতপুর উপজেলা,
  4. মিরপুর উপজেলা,
  5. ভেড়ামারা উপজেলা,
  6. খোকসা উপজেলা।

কুষ্টিয়া সদর উপজেলা

কুষ্টিয়া সদর উপজেলা হল জেলার প্রশাসনিক সদর দপ্তর। এটি পদ্মা নদীর তীরে অবস্থিত।

কুমারখালী উপজেলা

কুমারখালী উপজেলা কুষ্টিয়া সদর উপজেলার উত্তরে অবস্থিত। এটি তার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং এর ঐতিহাসিক স্থানগুলির জন্য পরিচিত।

দৌলতপুর উপজেলা

দৌলতপুর উপজেলা কুষ্টিয়া সদর উপজেলার পশ্চিমে অবস্থিত। এটি তার কৃষি উৎপাদনের জন্য পরিচিত।

মিরপুর উপজেলা

কুষ্টিয়া সদর উপজেলার দক্ষিণে মিরপুর উপজেলা অবস্থিত। এটি শিল্প উৎপাদনের জন্য পরিচিত।

ভেড়ামারা উপজেলা

কুষ্টিয়া সদর উপজেলার দক্ষিণ-পূর্বে ভেড়ামারা উপজেলা অবস্থিত। এটি তার কৃষি উৎপাদনের জন্য পরিচিত।

খোকসা উপজেলা

কুষ্টিয়া সদর উপজেলার দক্ষিণ পশ্চিমে খোকসা উপজেলা অবস্থিত। এটি তার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং এর ঐতিহাসিক স্থানগুলির জন্য পরিচিত।

কুষ্টিয়া জেলার দর্শনীয় স্থান সমূহ

এখানে বাংলাদেশের কুষ্টিয়া জেলার জনপ্রিয় কিছু দর্শনীয় স্থান/পর্যটন আকর্ষণ রয়েছে:

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের শিলাইদহ কুঠিবাড়ি

এটি বিখ্যাত বাঙালি কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সাবেক বাসভবন। কুষ্টিয়া শহর থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূরে শিলাইদহ গ্রামে এটি অবস্থিত। কুঠিবাড়িটি একটি বিশাল বাগান সহ একটি দ্বিতল ভবন। এটি এখন একটি জাদুঘর, যেখানে ঠাকুরের ব্যক্তিগত জিনিসপত্র এবং স্মৃতিচিহ্ন প্রদর্শন করা হয়।

লালন একাডেমী এবং মাজার

এটি ১৯ শতকের মরমী কবি ও সমাজ সংস্কারক লালন ফকিরের মাজার। মাজারটি কুষ্টিয়া শহরে অবস্থিত। লালন ফকির বাংলাদেশের একজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব, এবং তার শিক্ষা আজও বহু মানুষ অনুসরণ করে।

হার্ডিঞ্জ ব্রিজ

এটি পদ্মা নদীর উপর একটি রেলওয়ে সেতু। এটি ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক সরকার ১৯১৫ সালে তৈরি করেছিল। সেতুটির নামকরণ করা হয়েছে লর্ড হার্ডিঞ্জের নামে, যিনি সেই সময়ে ভারতের ভাইসরয় ছিলেন।

ঝাউদিয়া মসজিদ

এটি কুষ্টিয়া শহর থেকে প্রায় ১৫ কিলোমিটার দূরে ঝাউদিয়া গ্রামে অবস্থিত ১৭ শতকের একটি মসজিদ। মসজিদটি মুঘল স্থাপত্যশৈলীর এক চমৎকার নিদর্শন।

ঠাকুর লজ

এটি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের পুত্র রথীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রাক্তন বাসভবন। এটি কুষ্টিয়া শহরে অবস্থিত। লজটি এখন একটি জাদুঘর, যেখানে ঠাকুরের ব্যক্তিগত জিনিসপত্র এবং স্মৃতিচিহ্ন প্রদর্শন করা হয়েছে।

লালন শাহ সেতু

এটি গড়াই নদীর উপর একটি ঝুলন্ত সেতু। এটি ২০১৩ সালে নির্মিত হয়েছিল। সেতুটির নামকরণ করা হয়েছে লালন ফকিরের নামে।

স্বস্তিপুর মসজিদ

এটি কুষ্টিয়া শহর থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার দূরে স্বস্তিপুর গ্রামে অবস্থিত ষোড়শ শতাব্দীর একটি মসজিদ। মসজিদটি বাঙালি স্থাপত্যের একটি চমৎকার নিদর্শন।

গোপীনাথ জেউর মন্দির

কুষ্টিয়া শহর থেকে প্রায় ২৫ কিলোমিটার দূরে রথখোলা গ্রামে অবস্থিত এটি একটি হিন্দু মন্দির। মন্দিরটি হিন্দু দেবতা কৃষ্ণকে উৎসর্গ করা হয়েছে।

কুষ্টিয়া জেলার অসংখ্য পর্যটন আকর্ষণের মধ্যে এগুলি কয়েকটি মাত্র। সমৃদ্ধ ইতিহাস ও সংস্কৃতির কারণে কুষ্টিয়া একটি দর্শনীয় স্থান।

কুষ্টিয়া জেলার পার্ক সমূহ

এখানে বাংলাদেশের কুষ্টিয়া জেলার কিছু পাবলিক পার্ক রয়েছে:

কুষ্টিয়া টাউন পার্ক

এই পার্কটি কুষ্টিয়া শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত এবং স্থানীয় এবং পর্যটকদের কাছে একইভাবে একটি জনপ্রিয় স্থান। এটিতে একটি খেলার মাঠ, একটি হ্রদ, বিভিন্ন ধরণের গাছ এবং ফুল এবং বেশ কয়েকটি বেঞ্চ এবং টেবিল রয়েছে যেখানে লোকেরা আরাম করতে পারে এবং প্রাকৃতিক দৃশ্য উপভোগ করতে পারে।

দেশবন্ধু পার্ক

মহান বাঙালি নেতা দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাসের নামানুসারে এই পার্কটির নামকরণ করা হয়েছে। এটি কুষ্টিয়া শহরের উত্তরাঞ্চলে অবস্থিত এবং পিকনিক এবং পারিবারিক জমায়েতের জন্য একটি জনপ্রিয় স্থান। পার্কটিতে অনেকগুলি গাছ এবং ফুল, সেইসাথে একটি খেলার মাঠ এবং একটি হ্রদ রয়েছে৷

মহেশপুর পার্ক

এই পার্কটি কুষ্টিয়া শহর থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার দূরে মহেশপুর শহরে অবস্থিত। এটি সাঁতার কাটা এবং নৌকা চালানোর জন্য একটি জনপ্রিয় স্থান। পার্কটিতে একটি বড় হ্রদ, অনেকগুলি গাছ এবং ফুলের পাশাপাশি একটি খেলার মাঠ এবং বেশ কয়েকটি বেঞ্চ এবং টেবিল রয়েছে যেখানে লোকেরা আরাম করতে এবং দৃশ্য উপভোগ করতে পারে।

দৌলতপুর পার্ক

এই পার্কটি কুষ্টিয়া শহর থেকে প্রায় ৩০ কিলোমিটার দূরে দৌলতপুর শহরে অবস্থিত। এটি পিকনিক এবং পারিবারিক সমাবেশের জন্য একটি জনপ্রিয় স্পট। পার্কটিতে অনেকগুলি গাছ এবং ফুলের পাশাপাশি একটি খেলার মাঠ এবং একটি হ্রদ রয়েছে৷

হরিহরপুর পার্ক

এই পার্কটি কুষ্টিয়া শহর থেকে প্রায় ৪০ কিলোমিটার দূরে হরিহরপুর শহরে অবস্থিত। এটি সাঁতার কাটা এবং নৌকা চালানোর জন্য একটি জনপ্রিয় স্থান। পার্কটিতে একটি বড় হ্রদ, অনেকগুলি গাছ এবং ফুলের পাশাপাশি একটি খেলার মাঠ এবং বেশ কয়েকটি বেঞ্চ এবং টেবিল রয়েছে যেখানে লোকেরা আরাম করতে এবং দৃশ্য উপভোগ করতে পারে।

যে কারনে কুষ্টিয়া জেলা বিখ্যাত

কুষ্টিয়া জেলা অনেক কিছুর জন্য বিখ্যাত, যার মধ্যে রয়েছে:

  • এর সমৃদ্ধ ইতিহাস ও সংস্কৃতি: কুষ্টিয়ায় লালন শাহ মাজার, শিলাইদহ কুঠিবাড়ি, এবং হার্ডিঞ্জ ব্রিজ সহ বেশ কয়েকটি ঐতিহাসিক স্থান রয়েছে। জেলায় লালন মেলা এবং কুষ্টিয়া মেলা সহ বেশ কয়েকটি সাংস্কৃতিক উৎসবের আবাসস্থল।
  • সুন্দর প্রাকৃতিক দৃশ্য: কুষ্টিয়া গাঙ্গেয় ব-দ্বীপে অবস্থিত এবং এই জেলাটি অনেকগুলি নদী, খাল এবং জলাভূমির আবাসস্থল। এছাড়াও জেলাটি বেশ কয়েকটি বন ও পাহাড়ের আবাসস্থল।
  • সুস্বাদু খাবার: কুষ্টিয়া বিখ্যাত কুষ্টিয়ার মাটন এবং কুষ্টিয়া কুলফি সহ সুস্বাদু খাবারের জন্য পরিচিত।
  • বন্ধুত্বপূর্ণ মানুষ: কুষ্টিয়ার মানুষ তাদের আতিথেয়তা এবং তাদের জীবন ভালবাসার জন্য পরিচিত।

এখানে কুষ্টিয়ার কিছু নির্দিষ্ট পর্যটন আকর্ষণ রয়েছে:

  • লালন শাহ মাজার: লালন শাহ মাজার হিন্দু এবং মুসলমান উভয়ের জন্যই একটি জনপ্রিয় তীর্থস্থান। লালন শাহ ছিলেন ১৯ শতকের একজন রহস্যবাদী যিনি শান্তি ও সহনশীলতার বার্তা প্রচার করেছিলেন।
  • শিলাইদহ কুঠিবাড়ি: শিলাইদহ কুঠিবাড়ি ছিল নোবেল বিজয়ী কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বাড়ি। ঠাকুর তার শৈশব শিলাইদহে কাটিয়েছেন, এবং কুঠিবাড়ি এখন তার জীবন ও কাজের জন্য নিবেদিত একটি জাদুঘর।
  • হার্ডিঞ্জ ব্রিজ: হার্ডিঞ্জ ব্রিজ হল একটি ঝুলন্ত সেতু যা গঙ্গা নদীর উপর বিস্তৃত। সেতুটি ১৯১৫ সালে নির্মিত হয়েছিল, এবং এটি বাংলাদেশের সবচেয়ে আইকনিক ল্যান্ডমার্কগুলির মধ্যে একটি।
  • কুষ্টিয়া মেলা: কুষ্টিয়া মেলা একটি বড় বার্ষিক মেলা যা কুষ্টিয়ায় অনুষ্ঠিত হয়। মেলায় খাবার, পোশাক এবং স্যুভেনির বিক্রির বিভিন্ন স্টল রয়েছে। সঙ্গীত, নৃত্য এবং থিয়েটার সহ বেশ কিছু সাংস্কৃতিক পরিবেশনাও রয়েছে।
  • কুষ্টিয়া মাটন: কুষ্টিয়া মাটন একটি জনপ্রিয় খাবার যা কুষ্টিয়া জেলায় লালিত ভেড়ার মাংস দিয়ে তৈরি করা হয়। মটন তার কোমল মাংস এবং এর সুস্বাদু স্বাদের জন্য পরিচিত।
  • কুষ্টিয়া কুলফি: কুষ্টিয়া কুলফি একটি জনপ্রিয় মিষ্টি যা দুধ, চিনি এবং বাদাম দিয়ে তৈরি করা হয়। কুলফি তার ক্রিমি টেক্সচার এবং এর সমৃদ্ধ গন্ধের জন্য পরিচিত।

কুষ্টিয়া একটি সুন্দর এবং প্রাণবন্ত জেলা যা দর্শনার্থীদের জন্য অনেক কিছু। আপনি যদি বাংলাদেশের সেরা অভিজ্ঞতার জায়গা খুঁজছেন, তাহলে কুষ্টিয়া হল নিখুঁত গন্তব্য।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Oops!
সম্ভবত আপনার ইন্টারনেট সংযোগে ত্রুটি হয়েছে!!