আমাদের ফলো করুন গুগল নিউজ

পিরোজপুর জেলার দর্শনীয় স্থান, ইতিহাস ও তথ্য সমূহ

পিরোজপুর জেলা বাংলাদেশের বরিশাল বিভাগের একটি জেলা। এটি দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত, এবং বরিশাল, গোপালগঞ্জ, ঝালকাঠি, বরগুনা এবং বাগেরহাট জেলার সীমানা। জেলার জনসংখ্যার বেশিরভাগই মুসলিম। জেলাটিতে কুমারখালী কালী মন্দির, রায়েরকাটি জমিদারবাড়ি এবং নেছারাবাদ মসজিদ সহ বহু ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক স্থান রয়েছে। এই জেলাটি বিশ্বের বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবন সহ অনেকগুলি প্রাকৃতিক আকর্ষণ সহ জেলাটি প্রাচীন শহর চন্দ্রকেতুগড়, পিরোজপুর জাদুঘর এবং পিরোজপুর দুর্গের ধ্বংসাবশেষ সহ বহু ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক স্থানের আবাসস্থল।

Pirojpur-District

পিরোজপুর জেলার ইতিহাস

পিরোজপুর জেলার নামকরণের ইতিহাস দীর্ঘ ও জটিল। সুবেদার শাহ সুজার দ্বিতীয় পুত্রের নামানুসারে জেলার নামকরণ হয় ফিরোজপুর। সময়ের সাথে সাথে, ফিরোজপুরের উচ্চারণ ধীরে ধীরে পিরোজপুর এবং পরে পিরোজপুরে নিঃশব্দ হয়ে যায়।

১৮৫৯ সালের ২৮ অক্টোবর বরিশাল বিভাগের একটি মহকুমা (তখন একটি মহকুমা, এখন একটি জেলা) হিসাবে জেলাটি তৈরি করা হয়েছিল। পিরোজপুর জেলা গঠিত হয় ১ মার্চ ১৯৮৪ এবং পৌরসভা গঠিত হয় ১৮৮৫ সালে। এটি বরিশাল বিভাগের অধীনে। পিরোজপুরে পিরোজপুর, ভান্ডারিয়া, মঠবাড়িয়া নামে তিনটি পৌরসভা রয়েছে। পিরোজপুর জেলায় সাতটি উপজেলা (উপজেলা) রয়েছে: পিরোজপুর সদর, ভান্ডারিয়া, মঠবাড়িয়া, ইন্দুরকানি, নাজিরপুর, নেছারাবাদ এবং কাউখালী।

জেলাটি বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমে বঙ্গোপসাগরের উপকূলে অবস্থিত। এটির উত্তরে বরিশাল জেলা, পূর্বে পটুয়াখালী জেলা এবং দক্ষিণে সাতক্ষীরা জেলা অবস্থিত। জেলাটিতে আড়িয়াল খা নদী, মধুমতি নদী এবং সাঙ্গু নদী সহ বেশ কয়েকটি নদীর আবাসস্থল। জেলার জলবায়ু গ্রীষ্মমন্ডলীয়, গরম গ্রীষ্ম এবং আর্দ্র শীতের সাথে।

জেলার অর্থনীতি কৃষি, মাছ ধরা এবং বনায়নের উপর ভিত্তি করে। জেলায় উৎপাদিত প্রধান ফসল ধান, পাট ও শাকসবজি। এছাড়াও জেলাটিতে মাছ ধরার শিল্প, লবণ শিল্প এবং কাঠ শিল্প সহ বেশ কিছু শিল্পের আবাসস্থল।

পিরোজপুর জেলার উপজেলা/থানা সমূহ

পিরোজপুর জেলায় ৭টি উপজেলা বা থানা রয়েছে। যা হলো:

  1. পিরোজপুর সদর উপজেলা,
  2. জিয়ানগর উপজেলা,
  3. মঠবাড়িয়া উপজেলা,
  4. ভান্ডারিয়া উপজেলা,
  5. কাউখালী উপজেলা,
  6. নেছারাবাদ (স্বরূপকাঠি) উপজেলা,
  7. নাজিরপুর উপজেলা।

পিরোজপুর সদর উপজেলা

পিরোজপুর সদর উপজেলা হল পিরোজপুর জেলার প্রশাসনিক সদর দফতর। এটি বলেশ্বরী নদীর তীরে অবস্থিত। উপজেলার জনসংখ্যা প্রায় আড়াই লাখের মতো।

জিয়ানগর উপজেলা

জিয়ানগর উপজেলা পিরোজপুর জেলার উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত। এর উত্তরে ভাণ্ডারিয়া উপজেলা, পূর্বে পিরোজপুর সদর উপজেলা, দক্ষিণে মঠবাড়িয়া উপজেলা এবং পশ্চিমে বরগুনা জেলা অবস্থিত।

মঠবাড়িয়া উপজেলা

পিরোজপুর জেলার দক্ষিণ-পশ্চিমে মঠবাড়িয়া উপজেলা অবস্থিত। এর উত্তরে ভাণ্ডারিয়া উপজেলা, দক্ষিণে বরগুনা জেলা এবং পশ্চিমে বঙ্গোপসাগর অবস্থিত।

ভান্ডারিয়া উপজেলা

পিরোজপুর জেলার উত্তর-পশ্চিমে ভান্ডারিয়া উপজেলা অবস্থিত। এর উত্তরে জিয়ানগর উপজেলা, পূর্বে পিরোজপুর সদর উপজেলা, দক্ষিণে বরগুনা জেলা এবং পশ্চিমে বঙ্গোপসাগর অবস্থিত।

কাউখালী উপজেলা

কাউখালী উপজেলা পিরোজপুর জেলার দক্ষিণ পূর্বে অবস্থিত। এর উত্তরে মঠবাড়িয়া উপজেলা, পূর্ব ও দক্ষিণে বঙ্গোপসাগর এবং পশ্চিমে ঝালকাঠি জেলা।

নেছারাবাদ (স্বরূপকাঠি) উপজেলা

পিরোজপুর জেলার উত্তর-পূর্বে নেছারাবাদ (স্বরূপকাঠি) উপজেলা অবস্থিত। এর উত্তরে জিয়ানগর উপজেলা, পূর্বে পিরোজপুর সদর উপজেলা, দক্ষিণে নাজিরপুর উপজেলা এবং পশ্চিমে বাগেরহাট জেলা অবস্থিত।

নাজিরপুর উপজেলা

পিরোজপুর জেলার দক্ষিণ-পূর্বে নাজিরপুর উপজেলা অবস্থিত। এর উত্তরে কাউখালী উপজেলা, পূর্ব ও দক্ষিণে বঙ্গোপসাগর এবং পশ্চিমে ঝালকাঠি জেলা।

পিরোজপুর জেলার দর্শনীয় স্থান সমূহ

এখানে বাংলাদেশের পিরোজপুর জেলার কিছু জনপ্রিয় দর্শনীয় স্থান/পর্যটন গন্তব্য রয়েছে:

ডিসি পার্ক

এই পার্কটি বলেশ্বর নদীর তীরে অবস্থিত এবং নদী এবং পার্শ্ববর্তী গ্রামাঞ্চলের অত্যাশ্চর্য দৃশ্য দেখায়। পার্কটিতে একটি ওয়াচ টাওয়ার রয়েছে যা এলাকার মনোরম দৃশ্যগুলি প্রদান করে।

রায়েরকাটি জমিদার বাড়ি

১৯ শতকের এই প্রাসাদটি বাঙালি স্থাপত্যের একটি সুন্দর নিদর্শন। প্রাসাদটি এখন একটি জাদুঘর যেখানে জমিদারি আমলের নিদর্শনগুলির সংগ্রহ রয়েছে।

শাপলাজা কুঠিবাড়ি

১৯ শতকের এই অট্টালিকাটি মঠবাড়িয়া উপজেলায় অবস্থিত। প্রাসাদটি এখন একটি পর্যটক আকর্ষণ এবং এর সুন্দর বাগানগুলির জন্য পরিচিত।

কেন্দ্রীয় পিরোজপুর মসজিদ

এই মসজিদটি ১৭ শতকে নির্মিত হয়েছিল এবং এটি বাংলাদেশের প্রাচীনতম মসজিদগুলির মধ্যে একটি। মসজিদটি মুঘল স্থাপত্যের একটি চমৎকার নিদর্শন।

মমিন মসজিদ

১৮ শতকে নির্মিত এই মসজিদটি মঠবাড়িয়া উপজেলায় অবস্থিত। মসজিদটি বাঙালি স্থাপত্যের একটি চমৎকার নিদর্শন।

হুলারহাট নদী বন্দর

এই নদী বন্দরটি বলেশ্বর নদীর তীরে অবস্থিত। বন্দরটি এই অঞ্চলের জন্য একটি প্রধান পরিবহন কেন্দ্র এবং চাল, পাট এবং মাছের মতো পণ্য রপ্তানি করতে ব্যবহৃত হয়।

বলেশ্বর ঘাট স্মৃতিসৌধ

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় পিরোজপুরের জনগণের আত্মত্যাগের স্মরণে এই স্মৃতিস্তম্ভটি ১৯৭১ সালে নির্মিত হয়েছিল।

কদমতলা জর্জ হাই স্কুল

এই স্কুলটি ১৮৬৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এবং এটি বাংলাদেশের প্রাচীনতম স্কুলগুলির মধ্যে একটি। স্কুলটি ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক স্থাপত্যের একটি চমৎকার উদাহরণ।

ভান্ডারিয়া শিশু পার্ক

পোনা নদীর তীরে এই পার্কটি অবস্থিত। পার্কটি পরিবার এবং শিশুদের জন্য একটি জনপ্রিয় গন্তব্য। পার্কটিতে খেলার মাঠ, একটি ওয়াটার পার্ক এবং একটি চিড়িয়াখানা সহ বিভিন্ন রাইড এবং আকর্ষণ রয়েছে।

পিরোজপুর জেলার পার্ক সমূহ

পিরোজপুর জেলায় অনেক পাবলিক পার্ক রয়েছে, যার মধ্যে কিছু জনপ্রিয় পার্কের তথ্য এখানে দেওয়া হলো:

পিরোজপুর সদর উদ্যান

পিরোজপুর শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত এই পার্কটি স্থানীয় এবং পর্যটকদের কাছে একইভাবে একটি জনপ্রিয় স্থান। পার্কটিতে খেলার মাঠ, সুইমিং পুল এবং মসজিদ সহ বিভিন্ন সুবিধা রয়েছে।

পিরোজপুর ট্যুরিস্ট পার্ক

এই পার্কটি মেঘনা নদীর তীরে অবস্থিত এবং নদী এবং আশেপাশের গ্রামাঞ্চলের অত্যাশ্চর্য দৃশ্য দেখায়। পার্কটিতে খেলার মাঠ, সুইমিং পুল এবং রেস্তোরাঁ সহ বিভিন্ন সুবিধা রয়েছে।

পিরোজপুর চিড়িয়াখানা

এই চিড়িয়াখানাটি পিরোজপুর শহরের উপকণ্ঠে অবস্থিত এবং সিংহ, বাঘ, হাতি এবং বানর সহ বিভিন্ন প্রাণীর আবাসস্থল।

পিরোজপুর বোটানিক্যাল গার্ডেন

এই উদ্যানটি পিরোজপুর শহরের উপকণ্ঠে অবস্থিত এবং এখানে গাছ, ফুল এবং গুল্ম সহ বিভিন্ন ধরণের গাছপালা রয়েছে।

পিরোজপুর ওয়াটার পার্ক

এই ওয়াটার পার্কটি পিরোজপুর শহরের উপকণ্ঠে অবস্থিত এবং এটি স্থানীয় এবং পর্যটকদের কাছে একইভাবে একটি জনপ্রিয় স্থান। ওয়াটার পার্কে বিভিন্ন জলের স্লাইড, একটি তরঙ্গ পুল এবং একটি অলস নদী রয়েছে।

যে কারনে পিরোজপুর জেলা বিখ্যাত

পিরোজপুর জেলা বেশ কিছু জিনিসের জন্য বিখ্যাত, যার মধ্যে রয়েছে:

  • এর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য: পিরোজপুর সুন্দরবনে অবস্থিত, বিশ্বের বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ বন। জেলাটি বাঘ, কুমির এবং ডলফিন সহ বিভিন্ন ধরণের বন্যপ্রাণীর বাসস্থান।
  • ঐতিহাসিক গুরুত্ব: পিরোজপুর এক সময় ব্যবসা-বাণিজ্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র ছিল। জেলায় বলেশ্বর ঘাট স্মৃতিস্তম্ভ এবং কদমতলা জর্জ হাই স্কুল সহ বেশ কয়েকটি ঐতিহাসিক নিদর্শন রয়েছে।
  • সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্য: পিরোজপুর বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর আবাসস্থল, প্রত্যেকের নিজস্ব সংস্কৃতি এবং ঐতিহ্য রয়েছে। এছাড়াও জেলাটি পিরোজপুর মেলা এবং কুরিয়ানা ভাসমান বাজার সহ বেশ কয়েকটি উৎসবের আবাসস্থল।

এখানে পিরোজপুর জেলার কিছু পর্যটন আকর্ষণ রয়েছে:

  • বলেশ্বর ঘাট স্মৃতিস্তম্ভ: ১৯৭১ সালের বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে নিহত ব্যক্তিদের স্মরণে এই স্মৃতিস্তম্ভটি নির্মিত হয়েছিল।
  • কদমতলা জর্জ হাই স্কুল: এই স্কুলটি ১৮৮৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এবং এটি বাংলাদেশের প্রাচীনতম স্কুলগুলির মধ্যে একটি।
  • তাসমিমা ভিলা: এই ভিলাটি ২০ শতকের গোড়ার দিকে তৈরি করা হয়েছিল এবং এখন এটি একটি যাদুঘর।
  • ভান্ডারিয়া থানা ইকো পার্ক: এই পার্কটি ভান্ডারিয়া উপজেলায় অবস্থিত এবং এটি একটি হ্রদ এবং একটি বন সহ বেশ কয়েকটি প্রাকৃতিক আকর্ষণের আবাসস্থল।
  • মন্ত্রী বাড়ি মসজিদ: ১৮ শতকে নির্মিত এই মসজিদটি পিরোজপুর জেলার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ মসজিদ।
  • কুরিয়ানা ভাসমান বাজার: এই বাজারটি কুরিয়ানা উপজেলায় অবস্থিত এবং এটি বাংলাদেশের অন্যতম বৃহত্তম ভাসমান বাজার।
  • পিরোজপুর রিভার ভিউ ইকো পার্ক: এই পার্কটি পিরোজপুর পৌরসভায় অবস্থিত এবং নদীর অত্যাশ্চর্য দৃশ্য দেখায়।
  • রায়েরকাঠি রাজ বাড়ি: এই প্রাসাদটি ১৮ শতকে নির্মিত হয়েছিল এবং এখন এটি একটি জাদুঘর।
  • হরিণপালা রিভার ভিউ ইকো পার্ক: মঠবাড়িয়া উপজেলার তেলিখালী ইউনিয়নে অবস্থিত এই পার্কটি নদীর অত্যাশ্চর্য দৃশ্য দেখায়।
  • শাপলেজা কুঠিবাড়ি: এই প্রাসাদটি ১৯ শতকে নির্মিত হয়েছিল এবং বর্তমানে এটি একটি জাদুঘর।
  • বলেশ্বরী নদী: এটি পিরোজপুর জেলার বৃহত্তম নদী। এটি মাছ ধরা এবং নৌকা চালানোর জন্য একটি জনপ্রিয় স্থান।

আপনি যদি একটি অনন্য এবং অবিস্মরণীয় ভ্রমণ অভিজ্ঞতা খুঁজছেন তবে পিরোজপুর জেলাটি দেখার জন্য একটি দুর্দান্ত জায়গা। এই জেলাটিতে প্রকৃতিপ্রেমীদের থেকে শুরু করে ইতিহাসপ্রেমিক থেকে শুরু করে সংস্কৃতির শকুন পর্যন্ত সকলের জন্য কিছু না কিছু আছে।

আপনি এই পোস্টগুলি দেখতে পারেন

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ওহ!
মনে হচ্ছে আপনার ইন্টারনেট সংযোগে কিছু সমস্যা আছে। অনুগ্রহ করে ইন্টারনেটের সাথে সংযোগ করুন এবং আবার ব্রাউজিং শুরু করুন৷
AdBlock সনাক্ত করা হয়েছে!
আমরা সনাক্ত করেছি যে আপনি আপনার ব্রাউজারে অ্যাডব্লকিং প্লাগইন ব্যবহার করছেন৷
এই ওয়েবসাইট পরিচালনার জন্য আমরা বিজ্ঞাপন থেকে আয় করি তাই অ্যাড আনব্লক করার জন্য অনুরোধ করছি।