ঢাকা জেলার তথ্য, ইতিহাস, দর্শনীয় স্থান সমূহ

ঢাকা জেলা বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চলের একটি জেলা এবং এটি দেশের সবচেয়ে ঘনবসতি জেলা। এটি বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা, যা বুড়িগঙ্গা নদীর পূর্ব তীরে অবস্থিত ও তুরাগ নদী থেকে জেলার দক্ষিণ অংশে প্রবাহিত। যদিও ঢাকা (সিটি কর্পোরেশন) ঢাকা জেলার প্রায় এক পঞ্চমাংশ এলাকা দখল করে আছে। এটি সমগ্র জেলা এবং দেশের অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র। ঢাকা জেলা ঢাকা, কেরানীগঞ্জ, নবাবগঞ্জ, দোহার, সাভার এবং ধামরাই উপজেলা নিয়ে গঠিত। এই জেলার জনসংখ্যা প্রায় ২২ মিলিয়নেরও বেশি। এটিকে বাংলাদেশের সবচেয়ে জনবহুল জেলা হিসেবে গড়ে উঠেছে। এই জেলাটি বাঙালি, বিহারী, চাকমা, গারো এবং সাঁওতাল সহ বিচিত্র পরিসরের মানুষের বাসস্থান।

ঢাকা জেলা বাংলাদেশের প্রধান অর্থনৈতিক কেন্দ্র। এই জেলায় টেক্সটাইল, ফার্মাসিউটিক্যালস এবং ইলেকট্রনিক্স সহ বেশ কিছু শিল্পের আবাসস্থল। এছাড়াও জেলাটি একটি প্রধান পরিবহন কেন্দ্র, ঢাকার বিমানবন্দরটি বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং ব্যস্ত বিমানবন্দর। জেলাটিতে লালবাগ কেল্লা, জাতীয় জাদুঘর এবং বাংলা একাডেমি সহ অনেকগুলো ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক আকর্ষণও রয়েছে।

Dhaka-District

ঢাকা নামকরণ ও জেলার ইতিহাস

কয়েক শতাব্দী ধরে ঢাকা জেলার নাম পরিবর্তন হয়েছে বহুবার। এই অঞ্চলের প্রাচীনতম নাম ছিল "ঢাকা", যা "ঢাক" শব্দ থেকে এসেছে বলে মনে করা হয় এক ধরনের গাছ যা একসময় এই অঞ্চলে প্রচলিত ছিল। দ্বাদশ শতাব্দীতে হিন্দু সেন রাজবংশ ঢাকায় ঢাকেশ্বরী মন্দির নির্মাণ করেছিল এবং এই মন্দির থেকেই শহরের নামটি হতে পারে।

ষোড়শ শতাব্দীতে মুঘল সাম্রাজ্য ঢাকা জয় করে এবং মুঘল সম্রাট জাহাঙ্গীরের সম্মানে এর নামকরণ করে "জাহাঙ্গীরনগর"। যাইহোক, এই নামটি ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়নি এবং শহরটি ঢাকা নামে পরিচিত হতে থাকে।

১৮ শতকে ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি ঢাকার নিয়ন্ত্রণ নেয় এবং এর নামকরণ করে "ঢাকা জেলা"। এই নামটি তখন থেকেই ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

ঢাকা জেলার নামটি এখনও ঐতিহাসিকদের মধ্যে বিতর্কের বিষয়। কেউ কেউ বিশ্বাস করেন যে নামটি এসেছে ঢাক গাছ থেকে আবার কেউ কেউ বিশ্বাস করেন এটি এসেছে ঢাকেশ্বরী মন্দির থেকে। সবচেয়ে সম্ভাব্য ব্যাখ্যা হল যে নামটি এই দুটি কারণের সংমিশ্রণ থেকে এসেছে।

ঢাকা জেলার উপজেলা/থানা সমূহ

ঢাকা জেলার মোট পাঁচটি থানা/উপজেলা রয়েছে, যা হলো:

  1. ধামরাই উপজেলা,
  2. দোহার উপজেলা,
  3. কেরানীগঞ্জ উপজেলা,
  4. নবাবগঞ্জ উপজেলা,
  5. সাভার উপজেলা।

ঢাকা শহরের পৌর এলাকা ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন এবং ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের এখতিয়ারের অধীনে; দুই সিটি করপোরেশনের সঙ্গে একীভূত হয়েছে তেজগাঁও উন্নয়ন সার্কেল।

ঢাকা জেলার দর্শনীয় স্থান সমূহ

এখানে ঢাকা জেলার কিছু পর্যটন/দর্শনীয় স্থান সম্পর্কে দেওয়া হলো:

আহসান মঞ্জিল

এটি একটি গোলাপি রঙের প্রাসাদ যা একসময় ঢাকার নবাবদের বাসস্থান ছিল। এটি এখন একটি জাদুঘর যেখানে মুঘল যুগের নিদর্শন এবং আসবাবপত্রের একটি সংগ্রহ রয়েছে।

লালবাগ দুর্গ

এটি ১৭ শতকের একটি দুর্গ যা মুঘলদের দ্বারা নির্মিত হয়েছিল। এটি এখন একটি জনপ্রিয় পর্যটন গন্তব্য এবং এখানে বেশ কিছু মসজিদ, বাগান এবং অন্যান্য ঐতিহাসিক ভবন রয়েছে।

জাতীয় সংসদ ভবন

এটি বাংলাদেশ সরকারের আসন। এটি একটি বড় এবং চিত্তাকর্ষক বিল্ডিং যা এর স্থাপত্য এবং ইতিহাসের জন্য দেখার মতো।

মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর

এই জাদুঘরটি ১৯৭১ সালের বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের জন্য নিবেদিত। এটিতে ফটোগ্রাফ, নথিপত্র এবং যুদ্ধের গল্প বলা অন্যান্য নিদর্শনগুলির একটি সংগ্রহ রয়েছে।

বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর

এটি বাংলাদেশের বৃহত্তম জাদুঘর। এটি প্রত্নতাত্ত্বিক আবিষ্কার, ভাস্কর্য, পেইন্টিং এবং টেক্সটাইল সহ সারা দেশ থেকে নিদর্শনগুলির একটি সংগ্রহ করে।

তারকা মসজিদ (তারা মসজিদ)

এটি ১৭ শতকের একটি মসজিদ যা তার জটিল তারা-আকৃতির নকশার জন্য বিখ্যাত। এটি ঢাকার সবচেয়ে জনপ্রিয় পর্যটন আকর্ষণের একটি।

শ্রী শ্রী ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির

এটি বাংলাদেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ হিন্দু মন্দির। এটি দেবী দুর্গার উদ্দেশ্যে উত্সর্গীকৃত এবং সারাদেশের হিন্দুদের জন্য এটি একটি জনপ্রিয় তীর্থস্থান।

বাংলাদেশ জাতীয় চিড়িয়াখানা

এটি একটি চিড়িয়াখানা যা সিংহ, বাঘ, হাতি এবং জিরাফ সহ বিভিন্ন প্রাণীর আবাসস্থল। এটি পরিবার পরিদর্শনের জন্য একটি জনপ্রিয় জায়গা।

ঢাকা নিউ মার্কেট

এটি একটি বৃহৎ এবং জমজমাট বাজার যা স্যুভেনির এবং স্থানীয় হস্তশিল্পের কেনাকাটার জন্য একটি চমৎকার জায়গা।

বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদ

এটি বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় মসজিদ এবং মুসলমানদের নামাজ পড়ার জন্য এটি একটি জনপ্রিয় স্থান।

জাতীয় স্মৃতিসৌধ

এটি একটি স্মৃতিস্তম্ভ যা বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের শহীদদের স্মরণ করে। মানুষের শ্রদ্ধা জানাতে এটি একটি জনপ্রিয় জায়গা।

ঢাকা জেলার অনেকগুলো পর্যটন/দর্শনযোগ্য স্থানের মধ্যে এগুলো মাত্র কয়েকটি। এখানে দেখার জন্য আরও অনেক জায়গা আছে।

ঢাকা জেলার পাবলিক পার্ক সমূহ

ঢাকা জেলার কিছু পাবলিক পার্কের তালিকা এখানে দেওয়া হল:

রমনা পার্ক

এটি ঢাকার অন্যতম প্রাচীন এবং জনপ্রিয় পার্ক। এটি শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত এবং এখানে বিভিন্ন ধরণের গাছ, ফুল এবং প্রাণী রয়েছে। পার্কটিতে একটি খেলার মাঠ, একটি হ্রদ এবং একটি মসজিদ সহ বেশ কয়েকটি সুবিধা রয়েছে।

গুলশান লেক পার্ক

ঢাকার গুলশান এলাকায় অবস্থিত এই পার্কটি তার সুন্দর লেক এবং সবুজের জন্য পরিচিত। পার্কটি স্থানীয় এবং পর্যটক উভয়ের জন্যই একটি জনপ্রিয় স্থান।

চন্দ্রিমা উদ্যান

ঢাকার মিরপুর এলাকায় অবস্থিত এই উদ্যানটি চিড়িয়াখানা, বোটানিক্যাল গার্ডেন এবং একটি জাদুঘর সহ বেশ কিছু আকর্ষণের আবাসস্থল। পার্কটি পরিবার এবং প্রকৃতি প্রেমীদের জন্য একটি জনপ্রিয় স্থান।

শিশু পার্ক

ঢাকার ধানমন্ডি এলাকায় অবস্থিত এই পার্কটি শিশুদের জন্য বিশেষভাবে তৈরি করা হয়েছে। পার্কে অনেক রাইড, খেলার মাঠ এবং অন্যান্য ক্রিয়াকলাপ রয়েছে যা সব বয়সের বাচ্চাদের জন্য উপযুক্ত।

ন্যাশনাল বোটানিক্যাল গার্ডেন

ঢাকার মিরপুর এলাকায় অবস্থিত এই বাগানটি বিভিন্ন ধরনের উদ্ভিদ ও ফুলের আবাসস্থল। বাগানটি স্থানীয় এবং পর্যটক উভয়ের জন্যই একটি জনপ্রিয় স্থান।

এই জেলার অনেকগুলো পাবলিক পার্কের মধ্যে এগুলি কয়েকটি মাত্র।

যে কারনে ঢাকা জেলা বিখ্যাত

ঢাকা জেলা অনেক কিছুর জন্য বিখ্যাত, যার মধ্যে অল্প কিছু রয়েছে:

  • সমৃদ্ধ ইতিহাস ও সংস্কৃতি: ঢাকা দক্ষিণ এশিয়ার প্রাচীনতম শহরগুলির মধ্যে একটি, এবং এর একটি সমৃদ্ধ ইতিহাস রয়েছে যা হাজার বছরেরও বেশি পুরনো। শহরটি একসময় বেঙ্গল সালতানাত এবং পরবর্তীতে মুঘল সাম্রাজ্যের রাজধানী ছিল এবং এটি লালবাগ কেল্লা, আহসান মঞ্জিল প্রাসাদ এবং বায়তুল মোকাররম মসজিদ সহ বেশ কিছু ঐতিহাসিক স্মৃতিস্তম্ভ ও ল্যান্ডমার্কের আবাসস্থল।
  • প্রাণবন্ত সংস্কৃতি: ঢাকা একটি বৈচিত্র্যময় জনসংখ্যার সাথে একটি প্রাণবন্ত এবং মহাজাগতিক শহর। এই শহরটি সমগ্র বাংলাদেশের মানুষের পাশাপাশি দক্ষিণ এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য এবং পশ্চিমের অন্যান্য অঞ্চলের লোকদের বাসস্থান। এই বৈচিত্র্য শহরের সংস্কৃতিতে প্রতিফলিত হয়, যা বাঙালি, ইসলামিক এবং পশ্চিমা প্রভাবের মিশ্রণ।
  • সুস্বাদু খাবার: ঢাকা তার সুস্বাদু খাবারের জন্যও পরিচিত, যা বাঙালি, ভারতীয় এবং মধ্যপ্রাচ্যের খাবারের মিশ্রণ। সবচেয়ে জনপ্রিয় কিছু খাবারের মধ্যে রয়েছে বিরিয়ানি, কাবাব এবং তরকারি।
  • বন্ধুত্বপূর্ণ মানুষ: ঢাকার মানুষ বন্ধুত্বপূর্ণ এবং স্বাগত জানানোর জন্য পরিচিত। শহরের দর্শনার্থীরা প্রায়ই স্থানীয়দের উষ্ণতা এবং আতিথেয়তা দ্বারা প্রভাবিত হয়।

ঢাকা একটি আকর্ষণীয় শহর যেখানে দর্শনার্থীদের জন্যও অনেক কিছু রয়েছে। আপনি ইতিহাস, সংস্কৃতি, খাবার  বা মানুষ দেখার বিষয়ে আগ্রহী হন না কেন, ঢাকা কিছু সময় কাটানোর জন্য একটি দুর্দান্ত জায়গা। এটি এমন একটি শহর যা প্রতিনিয়ত পরিবর্তিত হচ্ছে এবং এটি এমন একটি শহর যা সুযোগ-সুবিধা দিয়ে পরিপূর্ণ।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Oops!
সম্ভবত আপনার ইন্টারনেট সংযোগে ত্রুটি হয়েছে!!