গাইবান্ধা জেলার তথ্য, ইতিহাস, দর্শনীয় স্থান সমূহ

গাইবান্ধা বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলের একটি জেলা, রংপুর বিভাগের অংশ। এর উত্তরে কুড়িগ্রাম ও রংপুর জেলা, দক্ষিণে বগুড়া জেলা, পশ্চিমে জয়পুরহাট জেলা, দিনাজপুর ও রংপুর জেলা এবং জামালপুর ও কুড়িগ্রাম জেলা এবং পূর্বে যমুনা নদী। যমুনা, তিস্তা, করতোয়া ও ঘাঘট এই জেলার উল্লেখযোগ্য নদী।

গাইবান্ধা আগে ভবানীগঞ্জ নামে পরিচিত ছিল। ১৮৭৫ সালে নামটি ভবানীগঞ্জ থেকে গাইবান্ধায় পরিবর্তন করা হয়। গাইবান্ধা একটি জেলা হিসাবে ১৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৮৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। গাইবান্ধা এই জেলার প্রশাসনিক সদর দফতর এবং বৃহত্তম নগর কেন্দ্র। জেলাটি একটি কৃষিপ্রধান জেলা যেখানে ধান, গম, পাট, আখ ও তামাক প্রধান ফসল। জেলাটিতে টেক্সটাইল, সিরামিক এবং খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ সহ বেশ কয়েকটি শিল্পের আবাসস্থল।

Gaibandha-District

গাইবান্ধা নামকরণ ও জেলার ইতিহাস

গাইবান্ধা জেলার নামকরণের ইতিহাস দীর্ঘ ও জটিল। জেলাটি প্রথমে ভবানীগঞ্জ নামে পরিচিত ছিল, কিন্তু ১৮৭৫ সালে এর নাম পরিবর্তন করে গাইবান্ধা রাখা হয়। গাইবান্ধা নামের উৎপত্তি সম্পর্কে দুটি প্রধান তত্ত্ব রয়েছে।
  1. প্রথম তত্ত্বটি হল: নামটি বাংলা শব্দ গাই (গাই) থেকে এসেছে যার অর্থ "গরু" এবং বান্ধা (বান্ধা) যার অর্থ "বেঁধে রাখা"। এই তত্ত্বটি এই কিংবদন্তির উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে যে জেলাটি এক সময় একটি ক্ষেতে বাঁধা গরুর একটি বড় পালের আবাসস্থল ছিল।
  2. দ্বিতীয় তত্ত্ব হল: নামটি স্থানীয় রাজা বিরাটের নাম থেকে এসেছে। বিরাট একজন শক্তিশালী রাজা ছিলেন যিনি এই অঞ্চলে শাসন করেছিলেন। তাঁর রাজ্য মৎস্য দেশ নামে পরিচিত ছিল, যার অর্থ "মাছের দেশ"। গাইবান্ধা নামটি মৎস্য শব্দের অপভ্রংশ বলে ধারণা করা হয়।
গাইবান্ধা নামটি আনুষ্ঠানিকভাবে ১৮৭৫ সালে গৃহীত হয়। তখন জেলাটিকে রংপুর বিভাগের একটি মহকুমা করা হয়। ১৯৮৪ সালে গাইবান্ধাকে জেলার মর্যাদায় উন্নীত করা হয়।

বর্তমানে, গাইবান্ধা একটি সমৃদ্ধ জেলা। মহাস্থানগড়ের প্রাচীন শহরের ধ্বংসাবশেষ সহ এই জেলাটি অনেকগুলি গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক স্থানের আবাসস্থল।

গাইবান্ধা জেলার উপজেলা/থানা সমূহ

গাইবান্ধা জেলায় ৭টি থানা/উপজেলা রয়েছে। যা হল:
  1. গাইবান্ধা সদর উপজেলা,
  2. গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা,
  3. পলাশবাড়ী উপজেলা,
  4. ফুলছড়ি উপজেলা,
  5. সাদুল্লাপুর উপজেলা,
  6. সুন্দরগঞ্জ উপজেলা,
  7. পাকুন্দিয়া উপজেলা।
প্রতিটি উপজেলাকে ইউনিয়ন এবং গ্রামে বিভক্ত করা হয়েছে।

গাইবান্ধা জেলার দর্শনীয় স্থান সমূহ

বাংলাদেশের গাইবান্ধা জেলার কিছু পর্যটন/দর্শনীয় স্থান এখানে রয়েছে:

মহাস্থানগড়

মহাস্থানগড় গাইবান্ধা জেলায় অবস্থিত একটি প্রাচীন দুর্গযুক্ত শহর। এটি বাংলাদেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রত্নতাত্ত্বিক স্থানগুলির মধ্যে একটি। মহাস্থানগড়ে বেশ কিছু মন্দির, মসজিদ এবং অন্যান্য ভবনের ধ্বংসাবশেষ পাওয়া যায়।

মধুটিলা ইকো-পার্ক

মধুটিলা ইকো-পার্ক গাইবান্ধা জেলায় অবস্থিত একটি প্রাকৃতিক উদ্যান। এটি হরিণ, বানর এবং পাখি সহ বিভিন্ন ধরণের উদ্ভিদ এবং প্রাণীর আবাসস্থল। দর্শনার্থীরা পার্কে হাঁটতে যেতে পারেন, লেকে নৌকায় চড়ে বেড়াতে পারেন বা পিকনিক করতে পারেন।

পাহাড়পুর

পাহাড়পুর গাইবান্ধা জেলায় অবস্থিত একটি গ্রাম। এটি বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় বৌদ্ধ বিহারের ধ্বংসাবশেষের আবাসস্থল। বিহারটি ৮ম শতাব্দীতে নির্মিত হয়েছিল এবং এটি ইউনেস্কোর একটি বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান।

রংপুর চিনিকল

রংপুর সুগার মিল হল গাইবান্ধা জেলায় অবস্থিত একটি চিনিকল। এটি বাংলাদেশের বৃহত্তম চিনিকলগুলোর একটি। দর্শনার্থীরা মিল পরিদর্শন করতে এবং চিনি তৈরির প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানতে পারেন।

রাজা বিরাটনগর প্রাসাদ

রাজা বিরাটনগর প্রাসাদ গাইবান্ধা জেলায় অবস্থিত একটি ধ্বংসপ্রাপ্ত প্রাসাদ। এটি ষোড়শ শতকে নির্মিত হয়েছিল এবং এটি একটি জনপ্রিয় পর্যটন স্থান।

বামনডাঙ্গা জমিদার বাড়ি

বামনডাঙ্গা জমিদার বাড়ি গাইবান্ধা জেলায় অবস্থিত একটি ধ্বংসপ্রাপ্ত প্রাসাদ। এটি অষ্টাদশ শতকে নির্মিত হয়েছিল এবং এটি একটি জনপ্রিয় পর্যটন স্থান।

নলডাঙ্গা জমিদার বাড়ি

নলডাঙ্গা জমিদার বাড়ি গাইবান্ধা জেলায় অবস্থিত একটি ধ্বংসপ্রাপ্ত প্রাসাদ। এটি সপ্তাদশ শতকে নির্মিত হয়েছিল এবং এটি একটি জনপ্রিয় পর্যটন স্থান।

বর্ধন কুঠি

বর্ধন কুঠি গাইবান্ধা জেলায় অবস্থিত একটি ধ্বংসপ্রাপ্ত প্রাসাদ। এটি ষোড়শ শতকে নির্মিত হয়েছিল এবং এটি একটি জনপ্রিয় পর্যটন স্থান।

গাইবান্ধা জেলার পাবলিক পার্ক সমূহ

এখানে গাইবান্ধা জেলার কিছু পাবলিক পার্ক সম্পর্কে দেওয়া হলো:

গাইবান্ধা পৌর উদ্যান

জেলার সবচেয়ে জনপ্রিয় পার্ক গাইবান্ধা পৌর উদ্যান। এটি শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত এবং এটি বিশ্রাম, হাঁটাহাঁটি বা পিকনিক করার একটি দুর্দান্ত জায়গা। পার্কটিতে বিভিন্ন ধরনের গাছ ও ফুলের পাশাপাশি একটি খেলার মাঠ, একটি সুইমিং পুল এবং একটি মসজিদ রয়েছে।

পৌরসভা পার্ক গ্যালারি

এটি একটি ছোট পার্ক যা পৌর উদ্যানের কাছে অবস্থিত। শহরের কোলাহল থেকে বিরতি নেওয়ার জন্য এটি একটি দুর্দান্ত জায়গা। পার্কে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের ফুল ও গাছের পাশাপাশি একটি ফোয়ারা সহ একটি পুকুর।

পুরাতন বাড়ি কুঠিপাড়া

এটি সদর গাইবান্ধা জেলার সদর উপজেলায় অবস্থিত একটি ঐতিহাসিক উদ্যান। এটি ১৯ শতকের একটি প্রাসাদের স্থান যা একসময় একজন ধনী বণিকের মালিকানাধীন ছিল। পার্কটিতে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের গাছ ও ফুলের পাশাপাশি একটি পুকুর ও একটি মসজিদ।

যে কারনে গাইবান্ধা জেলা বিখ্যাত

গাইবান্ধা জেলা অনেক কিছুর জন্য বিখ্যাত, যার মধ্যে রয়েছে:
  • সমৃদ্ধ ইতিহাস ও সংস্কৃতি: গাইবান্ধায় রাজবিরাত প্রসাদ প্রাসাদ, নলডাঙ্গা জমিদার বাড়ি এবং বামনডাঙ্গা জমিদার বাড়ি সহ অনেক ঐতিহাসিক স্থান রয়েছে। এছাড়াও এই জেলাটি বেশ কিছু ঐতিহ্যবাহী লোকশিল্প এবং কারুশিল্পের আবাসস্থল যেমন পল্লী-গীতি, ভাওয়াইয়া, জারিগান, সারিগান, ছরাগান এবং বিয়ের অনুষ্ঠান উপলক্ষে বিভিন্ন লোকগান।
  • প্রাকৃতিক সৌন্দর্য: গাইবান্ধা গাঙ্গেয় ব--দ্বীপের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত এবং এখানে সুন্দরবনের ম্যানগ্রোভ বন, যমুনা নদী ও তিস্তা নদীর মতো অনেকগুলি প্রাকৃতিক আকর্ষণ রয়েছে। এছাড়াও জেলাটিতে দুধকুমার বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য ও ফুলচোরি বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য সহ বেশ কয়েকটি বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য রয়েছে।
  • কৃষি উৎপাদন: গাইবান্ধা একটি প্রধান কৃষি জেলা এবং ধান, পাট, গম, আখ, আলু, বেগুন, সরিষা, মরিচ, পেঁয়াজ, রসুন ও শাকসবজি উৎপাদনের জন্য পরিচিত। এছাড়াও জেলাটিতে বেশ কয়েকটি গবাদি পশুর খামার রয়েছে ও এটি দুধ, ডিম এবং মাংসের প্রধান উৎপাদক।
  • ইকোট্যুরিজম সম্ভাবনা: গাইবান্ধায় ইকোট্যুরিজমের বেশ কিছু সুযোগ রয়েছে যেমন পাখি দেখা, বন্যপ্রাণী দেখা ও হাইকিং। জেলাটি অনেক ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক আকর্ষণের আবাসস্থল, যা এটিকে পর্যটকদের জন্য একটি জনপ্রিয় গন্তব্য করে তোলে।
সামগ্রিকভাবে, গাইবান্ধা একটি বৈচিত্র্যময় ও আকর্ষণীয় জেলা যেখানে দর্শনার্থীদের অনেক কিছু দেওয়া যায়। আপনি ইতিহাস, সংস্কৃতি, প্রকৃতি বা ইকোট্যুরিজম সম্পর্কে আগ্রহী হোন না কেন, গাইবান্ধা ভ্রমণের জন্যও এটি একটি দুর্দান্ত জায়গা।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Oops!
সম্ভবত আপনার ইন্টারনেট সংযোগে ত্রুটি হয়েছে!!