আমাদের ফলো করুন গুগল নিউজ

রংপুর জেলার তথ্য, ইতিহাস, দর্শনীয় স্থান সমূহ

রংপুর জেলা বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলে অবস্থিত রংপুর বিভাগের আটটি জেলার মধ্যে একটি। এটির উত্তরে নীলফামারী জেলা, দক্ষিণে গাইবান্ধা জেলা, পূর্বে কুড়িগ্রাম জেলা এবং পশ্চিমে দিনাজপুর জেলা অবস্থিত। জেলাটির জনসংখ্যা ২ মিলিয়নেরও বেশি লোক এবং এটি তার উর্বর মাটি, প্রাণবন্ত সংস্কৃতি এবং ঐতিহাসিক নিদর্শনগুলির জন্য পরিচিত।

রংপুর একটি প্রধান কৃষি কেন্দ্র, যেখানে ধান, গম, পাট ও চা উৎপাদন হয়। জেলাটিতে টেক্সটাইল, সিরামিকস এবং ফার্মাসিউটিক্যালস সহ বেশ কয়েকটি শিল্পের আবাসস্থল। রংপুর চিড়িয়াখানা, রংপুর জাদুঘর এবং রংপুর কেল্লার মতো আকর্ষণীয় স্থান সহ রংপুর একটি জনপ্রিয় পর্যটন গন্তব্য।

Rangpur-District

রংপুর নামকরণ ও জেলার ইতিহাস

"রংপুর" নামটি "রং" শব্দ থেকে উদ্ভূত হয়েছে বলে মনে করা হয় যেটি নীলের স্থানীয় নাম। মুঘল আমলে এই অঞ্চলে নীল একটি প্রধান ফসল ছিল এবং "রংপুর" নামটি হয়তো এই কারণেই এসেছে যে এলাকাটি নীল উৎপাদনের জন্য পরিচিত ছিল।

১৭৬৫ সালে মুঘল সাম্রাজ্য ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি দ্বারা উৎখাত হয়। রংপুর ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের একটি অংশ হয়ে ওঠে ও ব্রিটিশরা এই অঞ্চলে নীল চাষ করতে থাকে। ব্রিটিশরা রংপুরে বেশ কিছু স্কুল এবং হাসপাতালও প্রতিষ্ঠা করে এবং শহরটি একটি প্রধান আঞ্চলিক কেন্দ্রে পরিণত হয়।

১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ সাম্রাজ্য বিলুপ্ত হয়ে যায় ও রংপুর সদ্য স্বাধীন দেশ পাকিস্তানের একটি অংশে পরিণত হয়। ১৯৭১ সালে ভারতের সাথে যুদ্ধে পাকিস্তান পরাজিত হয় ও বাংলাদেশকে একটি স্বাধীন দেশ হিসেবে ঘোষণা করা হয় এবং রংপুর বাংলাদেশের অংশ হয়ে যায়।

ব্রিটিশ আমল থেকে এই জেলার জন্য "রংপুর" নামটি ব্যবহার হয়ে আসছে। জেলাটি এখন বাংলাদেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র।

রংপুর জেলার উপজেলা/থানা সমূহ

রংপুর জেলায় ৮টি উপজেলা/থানা রয়েছে। যা এইগুলো:
  1. রংপুর সদর উপজেলা,
  2. বদরগঞ্জ উপজেলা,
  3. কাউনিয়া উপজেলা,
  4. গঙ্গাছড়া উপজেলা,
  5. মিঠাপুকুর উপজেলা,
  6. তারাগঞ্জ উপজেলা,
  7. পীরগঞ্জ উপজেলা,
  8. পীরগাছা উপজেলা।
উপজেলা গুলোকে আবার ইউনিয়ন পরিষদ এবং গ্রামে ভাগ করা হয়েছে।

রংপুর জেলার দর্শনীয় স্থান সমূহ

এখানে রংপুর জেলার কিছু পর্যটন/দর্শনীয় স্থান রয়েছে:

তাজহাট প্রাসাদ

অষ্টাদশ শতকের এই প্রাসাদটি রংপুরের সবচেয়ে জনপ্রিয় পর্যটন আকর্ষণগুলির একটি। এটি রংপুর শহর থেকে প্রায় ১৫ কিলোমিটার দূরে তাজহাট শহরে অবস্থিত। প্রাসাদটি মুঘল স্থাপত্যের একটি চমৎকার নিদর্শন এবং বলা হয় যে এটি নবাব মীর জাফর দ্বারা নির্মিত হয়েছিল।

বরেন্দ্র গবেষণা জাদুঘর

এই জাদুঘরটি রংপুর শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত এবং এই অঞ্চলের ইতিহাস ও সংস্কৃতির সাথে সম্পর্কিত নিদর্শন ও প্রদর্শনীর একটি সংগ্রহ রয়েছে। যাদুঘরটি প্রত্নতত্ত্বের একটি বিভাগ, নৃতত্ত্বের একটি বিভাগ এবং প্রাকৃতিক ইতিহাসের একটি বিভাগ সহ কয়েকটি বিভাগে বিভক্ত।

পুঠিয়া মন্দির কমপ্লেক্স

রংপুর শহর থেকে প্রায় ৩০ কিলোমিটার দূরে পুঠিয়া শহরে অবস্থিত এই মন্দির কমপ্লেক্স। কমপ্লেক্সটি বেশ কয়েকটি হিন্দু মন্দির নিয়ে গঠিত যার মধ্যে প্রাচীনতমটি দ্বাদশ শতকে নির্মিত বলে মনে করা হয়। মন্দিরগুলি বাংলা স্থাপত্যের একটি চমৎকার নিদর্শন এবং এটি বাংলাদেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান হিসেবে বিবেচিত।

বাঘা মসজিদ

রংপুর শহর থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার দূরে বাঘা শহরে এই মসজিদটি অবস্থিত। মসজিদটি ১৭ শতকে নির্মিত বলে মনে করা হয় এবং এটি বাংলাদেশের অন্যতম বৃহত্তম মসজিদ। মসজিদটি মুঘল স্থাপত্যশৈলীর একটি চমৎকার নিদর্শন এবং এটি তার জটিল সজ্জার জন্য পরিচিত।

কাটরা মসজিদ

রংপুর শহর থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূরে কাটরা শহরে অবস্থিত এই মসজিদ। মসজিদটি ১৬ শতকে নির্মিত বলে মনে করা হয় এবং এটি বাংলাদেশের প্রাচীনতম মসজিদগুলির মধ্যে একটি। মসজিদটি বাঙ্গালী স্থাপত্যের একটি চমৎকার নিদর্শন এবং এটি তার সহজ নকশার জন্য পরিচিত।

কাঠগোলা বাগান

রংপুর শহর থেকে প্রায় ২৫ কিলোমিটার দূরে কাঠগোলা শহরে এই বাগানগুলো অবস্থিত। বাগানগুলি ১৯ শতকে একজন ধনী জমির মালিক দ্বারা তৈরি করা হয়েছিল এবং তাদের সুন্দর ফুল এবং গাছের জন্য পরিচিত। বাগানগুলি পিকনিক এবং পারিবারিক ভ্রমণের জন্য একটি জনপ্রিয় স্থান।

সিরাজ-উদ-দৌলার সমাধি

এই সমাধিটি রংপুর শহরে অবস্থিত। সমাধিটি বাংলার শেষ স্বাধীন নবাব সিরাজ-উদ-দৌলার চূড়ান্ত বিশ্রামস্থল। ১৭৫৭ সালে ব্রিটিশরা সিরাজ-উদ-দৌলাকে মৃত্যুদন্ড দেয়।

জগৎ শেঠের বাড়ি

এই বাড়িটি রংপুর শহরে অবস্থিত। বাড়িটি অষ্টাদশ শতকে ধনী বণিক জগৎ শেঠ দ্বারা নির্মিত হয়েছিল। বাড়িটি বাংলা স্থাপত্যের একটি চমৎকার উদাহরণ এবং এর জটিল কাঠের কাজের জন্য পরিচিত।
রংপুর জেলার জগৎ শেঠের বাড়ি একটি নতুন উইন্ডোতে খোলে৷

নসিপুর প্রাসাদ

এই প্রাসাদটি রংপুর শহর থেকে প্রায় ৪০ কিলোমিটার দূরে নসিপুর শহরে অবস্থিত। প্রাসাদটি ঊনবিংশ শতকে একজন ধনী জমির মালিক দ্বারা নির্মিত হয়েছিল এবং এটি তার সুন্দর বাগান এবং ফোয়ারাগুলির জন্য পরিচিত। প্রাসাদটি বিবাহ এবং অন্যান্য বিশেষ অনুষ্ঠানের জন্য একটি জনপ্রিয় স্থান।

রংপুর জেলার পাবলিক পার্ক সমূহ

রংপুর জেলায় অনেক পাবলিক পার্ক রয়েছে। জনপ্রিয় পার্কগুলির মধ্যে কয়েকটি অন্তর্ভুক্ত:

রংপুর সিটি পার্ক

এই পার্কটি রংপুর শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত এবং স্থানীয় এবং পর্যটকদের কাছে একইভাবে একটি জনপ্রিয় স্থান। পার্কটিতে খেলার মাঠ, একটি হাঁটার পথ, একটি লেক এবং বেশ কয়েকটি খাবারের স্টল সহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা রয়েছে।

শিশু পার্ক

এই পার্কটি রংপুর চিড়িয়াখানার কাছে অবস্থিত এবং ছোট বাচ্চাদের সাথে পরিবারের জন্য একটি দুর্দান্ত জায়গা। পার্কটিতে একটি খেলার মাঠ, একটি পোষা চিড়িয়াখানা এবং আরও অনেকগুলি আকর্ষণ রয়েছে৷

শায়মা সুন্দরী খাল

শায়মা সুন্দরী নদীর তীরে অবস্থিত এই পার্কটি আরাম ও প্রাকৃতিক দৃশ্য উপভোগ করার জন্য একটি চমৎকার জায়গা। পার্কটিতে বেশ কয়েকটি বেঞ্চ এবং গেজেবো, সেইসাথে একটি হাঁটার পথ রয়েছে।

চিকলি পার্ক

রংপুরের ধাপ এলাকায় অবস্থিত এই পার্কটি হাঁটতে বা সাইকেল চালানোর জন্য একটি চমৎকার জায়গা। পার্কটিতে অনেকগুলি গাছ এবং ফুল রয়েছে, সেইসাথে একটি খেলার মাঠ এবং একটি জলের ফোয়ারা রয়েছে।

যে কারনে রংপুর জেলা বিখ্যাত

রংপুর জেলা অনেক কিছুর জন্য বিখ্যাত, যার মধ্যে রয়েছে:
  • এর আম: রংপুর তার সুস্বাদু আমের জন্য পরিচিত, যা একটি জনপ্রিয় রপ্তানি। রংপুরের আমের সবচেয়ে বিখ্যাত জাতের হাড়িভাঙ্গা।
  • তামাক: রংপুর একটি প্রধান তামাক উৎপাদনকারী, যা সিগারেট এবং সিগার তৈরিতে ব্যবহৃত হয়।
  • হস্তশিল্প: রংপুর তার হস্তশিল্পের জন্য পরিচিত, যার মধ্যে শতরঞ্জি, এক ধরনের কাঠের আসবাবপত্র রয়েছে।
  • শিক্ষা প্রতিষ্ঠান: রংপুরে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় এবং রংপুর ক্যাডেট কলেজ সহ একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।
  • ঐতিহাসিক স্থান: রংপুর তাজহাট প্রাসাদ এবং রংপুর চিড়িয়াখানা সহ বেশ কয়েকটি ঐতিহাসিক স্থানের আবাসস্থল।
এখানে আপনি রংপুরের আরও কিছু বিখ্যাত নিদর্শন এর মধ্যে রয়েছে:
  • রংপুর চিড়িয়াখানা: রংপুর চিড়িয়াখানায় সিংহ, বাঘ, হাতি এবং বানর সহ বিভিন্ন প্রাণীর বাসস্থান।
  • তাজহাট প্রাসাদ: তাজহাট প্রাসাদটি অষ্টাদশ শতকে নির্মিত একটি সুন্দর প্রাসাদ।
  • বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যাল: বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় যা ১৯৯৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।
  • হস্তশিল্পের জন্য দোকান: রংপুর তার হস্তশিল্পের জন্য পরিচিত, যার মধ্যে রয়েছে শতরঞ্জি, এক ধরনের কাঠের আসবাবপত্র।
  • স্থানীয় খাবার: রংপুর হল বিভিন্ন ধরনের সুস্বাদু রেস্তোরাঁর আবাস যা ঐতিহ্যবাহী বাংলাদেশী খাবার পরিবেশন করে।
রংপুরও একটি জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র। জেলাটিতে রংপুর জাদুঘর, রংপুর চিড়িয়াখানা এবং রংপুর কেল্লা সহ বেশ কয়েকটি ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক স্থান রয়েছে।

আপনি এই পোস্টগুলি দেখতে পারেন

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ওহ!
মনে হচ্ছে আপনার ইন্টারনেট সংযোগে কিছু সমস্যা আছে। অনুগ্রহ করে ইন্টারনেটের সাথে সংযোগ করুন এবং আবার ব্রাউজিং শুরু করুন৷
AdBlock সনাক্ত করা হয়েছে!
আমরা সনাক্ত করেছি যে আপনি আপনার ব্রাউজারে অ্যাডব্লকিং প্লাগইন ব্যবহার করছেন৷
এই ওয়েবসাইট পরিচালনার জন্য আমরা বিজ্ঞাপন থেকে আয় করি তাই অ্যাড আনব্লক করার জন্য অনুরোধ করছি।