ধর্মসাগর পুকুর ইতিহাস ও বিখ্যাত হওয়ার কারন

ধর্মসাগর পুকুর বাংলাদেশের কুমিল্লার একটি মানবসৃষ্ট জলাশয়। এটি 1458 সালে ত্রিপুরা রাজা ”ধর্ম মাণিক্য প্রথম” দ্বারা খনন করা হয়েছিল। পুকুরটি প্রায় 9.38 হেক্টর আয়তনের যাকে বাংলাদেশের ঐতিহ্যের প্রাচীনতম নিদর্শনগুলির মধ্যে একটি হিসাবে বিবেচনা করা হয়। ধর্মসাগর মূলত স্থানীয় জনগণকে পানি সরবরাহের জন্য ব্যবহৃত হত। এটি গোসল, মাছ ধরা এবং নৌযান চালানোর জন্যও একটি জনপ্রিয় স্থান ছিল। বছরের পর বছর ধরে, পুকুরটি কুমিল্লার প্রতীক হয়ে উঠেছে এবং একটি জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র।

Dharmasagar-Pukur

ধর্মসাগর পুকুরের ইতিহাস 

ঊনবিংশ শতকে ধর্মসাগর ছিল বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাস্থল। 1826 সালে ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি কুমিল্লার যুদ্ধে বার্মিজ সেনাবাহিনীকে পরাজিত করে যেটি পুকুরের তীরে সংঘটিত হয়েছিল। 1857 সালের ভারতীয় বিদ্রোহ কুমিল্লায় শুরু হয় এবং ধর্মসাগর ব্রিটিশ ও বিদ্রোহীদের মধ্যে বেশ কয়েকটি যুদ্ধের স্থান ছিল। বিংশ শতাব্দীতে ধর্মসাগর বিনোদনের জন্য একটি জনপ্রিয় স্থান হিসাবে অব্যাহত ছিল। 1921 সালে কুমিল্লা পৌর কর্পোরেশন পুকুরের চারপাশে একটি পার্ক তৈরি করে। পার্কটির নামকরণ করা হয়েছিল কুমিল্লা মিউনিসিপ্যাল পার্ক, যা এখন কুমিল্লার অন্যতম জনপ্রিয় পর্যটন আকর্ষণ।

সাম্প্রতিক বছরগুলিতে ধর্মসাগর পুকুরের পরিবেশগত স্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বেগ রয়েছে। পয়ঃনিষ্কাশন ও শিল্প বর্জ্য দ্বারা পুকুরটি দূষিত হয়েছে। পুকুরের পরিবেশগত স্বাস্থ্য উন্নয়নে সরকার পদক্ষেপ নিয়েছে। 2017 সালে সরকার পুকুর পরিষ্কার এবং এর জলের গুণমান উন্নত করার জন্য একটি প্রকল্প চালু করেছিল।

বর্তমানে কি কি রয়েছে ধর্মসাগর পুকুর

বর্তমানে ধর্মসাগর পুকুর সহ আরও যা যা রয়েছে:

দ্য নজরুল মেমোরিয়াল

নজরুল স্মারক বাংলাদেশের কবি কাজী নজরুল ইসলামকে উৎসর্গ করা একটি জাদুঘর। ইসলাম ধর্মসাগর পুকুরে ঘন ঘন দর্শনার্থী ছিলেন এবং তিনি এটি নিয়ে অনেক কবিতা লিখেছেন। জাদুঘরটি পুকুরের তীরে অবস্থিত, এবং এটিতে ইসলামের ব্যক্তিগত জিনিসপত্রের একটি সংগ্রহ রয়েছে, সেইসাথে তার জীবন এবং কাজ সম্পর্কে প্রদর্শনী রয়েছে।

পার্ক

পুকুরের চারপাশে অবস্থিত একটি বড় পার্ক রয়েছে, যা পিকনিক, ঘোরাঘুরি এবং মানুষ দেখার জন্য একটি জনপ্রিয় স্থান। পার্কটিতে অনেকগুলি খেলার মাঠ রয়েছে, যা বাচ্চাদের খেলার জন্য একটি দুর্দান্ত জায়গা।

এই আকর্ষণগুলি ছাড়াও, ধর্মসাগর পুকুর উত্সব এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের জন্যও একটি জনপ্রিয় স্থান। ফেব্রুয়ারী বা মার্চ মাসে অনুষ্ঠিত বার্ষিক নজরুল উৎসবের সময় পুকুরটি বিশেষভাবে প্রাণবন্ত থাকে।

ধর্মসাগর পুকুর যে কারণে বিখ্যাত

এখানে ধর্মসাগর পুকুর বিখ্যাত হওয়ার কিছু নির্দিষ্ট কারণ রয়েছে:

  • এটি বাংলাদেশের প্রাচীনতম মানবসৃষ্ট জলাশয়গুলির মধ্যে একটি।
  • এটি দেশের একটি প্রধান সাংস্কৃতিক ও শিক্ষা কেন্দ্র। কুমিল্লায় বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ এবং স্কুল রয়েছে এবং এটি একটি জনপ্রিয় পর্যটন গন্তব্য।
  • এই পুকুরটি বহু বছর ধরে সঙ্গীতজ্ঞ শচীন দেব বর্মণ এবং কাজী নজরুল ইসলাম সহ অনেক বিখ্যাত ব্যক্তিদের আবাসস্থল। শচীন দেব বর্মণ ছিলেন একজন বিখ্যাত ভারতীয় সঙ্গীত রচয়িতা যিনি তাঁর শৈশব কুমিল্লায় অতিবাহিত করেন। কাজী নজরুল ইসলাম ছিলেন একজন বিখ্যাত বাঙালি কবি ও সঙ্গীতজ্ঞ যিনি একটি সময়ের জন্য কুমিল্লায় বসবাস করতেন।
  • ধর্মসাগর পুকুরটি তার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং এর ঐতিহাসিক তাত্পর্যের জন্য পরিচিত। পুকুরটি সবুজে ঘেরা, এবং কাছাকাছি বেশ ঐতিহাসিক স্থানগুলো রয়েছে।

পরিশেষে বলা যায়, ধর্মসাগর পুকুরটি তার বয়স, তার অবস্থান, তার ইতিহাস এবং তার সৌন্দর্যের জন্য বিখ্যাত। এটি বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় পর্যটন গন্তব্য এবং একটি সাংস্কৃতিক ল্যান্ডমার্ক। ধর্মসাগর পুকুর একটি মূল্যবান ঐতিহাসিক এবং সাংস্কৃতিক সম্পদ। এটি কুমিল্লার সমৃদ্ধ ইতিহাসের একটি অনুস্মারক এবং এটি বিনোদন ও বিশ্রামের জন্য একটি জনপ্রিয় স্থান।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Oops!
সম্ভবত আপনার ইন্টারনেট সংযোগে ত্রুটি হয়েছে!!